• বুধবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২৩, ০৩:১৫ পূর্বাহ্ন

উত্তর গাজার ১১ লাখ মানুষ সরিয়ে নেওয়া অসম্ভব: ইইউ

/ ৪৭ বার পঠিত
আপডেট: শনিবার, ১৪ অক্টোবর, ২০২৩

অনলাইন ডেস্ক:-
উত্তর গাজার ১১ লাখ মানুষকে ইসরায়েলের শর্ত মোতাবেক সরিয়ে নেওয়া অসম্ভব বলে জানিয়েছেন ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) পররাষ্ট্রনীতি বিষয়ক শীর্ষ কর্মকর্তা জোসেপ বোরেল। তিনি বলেন, উত্তর গাজা থেকে মানুষ সরিয়ে নেওয়ার নির্দেশ ‘বাস্তবায়ন করা একেবারেই অসম্ভব’। শনিবার (১৪ অক্টোবর) বেইজিংয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

চীনে এক কূটনৈতিক সফরের শেষদিনে তিনি আরও বলেন, গাজার মতো একটা জায়গা থেকে একদিনে ১০ লাখের বেশি মানুষ সরানো শুধু একটি মানবিক বিপর্যয়ের সময়ই চিন্তা করা যায়।

ইউরোপীয় ইউনিয়ন এরই মধ্যে ইসরাইলে প্রতি নিজেদের সমর্থন ব্যক্ত করলেও এই কর্মকর্তা সতর্ক করেছেন যে, ইসরাইল আন্তর্জাতিক মানবাধিকার আইনও মানতে বাধ্য। এদিকে শুক্রবার ইসরাইলের আলটিমেটামের পর গাজা উপত্যকার উত্তরাঞ্চল ওয়াদি ছেড়েছে চার লাখের বেশি ফিলিস্তিনি। শুক্রবার দিন শেষ হওয়ার আগেই ওয়াদি থেকে ফিলিস্তিনিরা বাড়িঘর ছেড়ে নিরাপদ আশ্রয়ের উদ্দেশে এলাকা ত্যাগ করেছেন।

শনিবারও এই ধারা অব্যাহত রয়েছে বলে এক বিবৃতিতে জানিয়েছে জাতিসংঘের মানবিক সহায়তা বিষয়ক অঙ্গসংস্থা ইউনাইটেড নেশনস অফিস ফর কোঅর্ডিনেশন অব হিউম্যানিটেরিয়ান অ্যাফেয়ার্স (ওচা)।

৩৬৫ বর্গকিলোমিটার আয়তনবিশিষ্ট গাজা উপত্যকায় বসবাস করেন ২৩ লাখেরও বেশি ফিলিস্তিনি। তাদের মধ্যে অন্তত ১১ লাখ, অর্থাৎ গাজা উপত্যকার মোট জনসংখ্যার প্রায় অর্ধেকই বসবাস করেন ওয়াদিতে।

গত ৭ অক্টোবর ইসরায়েলে নজিরবিহীন হামলা চালানো হয়। হামাসের হামলায় ইসরায়েলে নিহত মানুষের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ৩০০। প্রায় দেড়শ ইসরায়েলিকে আটক করেছে হামাস।

জবাবে ওই দিনই পাল্টা হামলা শুরু করে ইসরায়েল। গাজার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, অবরুদ্ধ গাজা উপত্যকায় ইসরায়েলি হামলায় নিহত ফিলিস্তিনিদের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ৯০০। এর মধ্যে ৬০০-এর বেশি শিশু। আহত হয়েছে ৬ হাজার ৩৮৮ জন। জাতিসংঘের তথ্যানুযায়ী, ইসরায়েলি হামলায় গাজায় নতুন করে বাস্তুচ্যুত হয়েছে ৩ লাখ ৩৮ হাজার ফিলিস্তিনি।

এই সংঘাতে ১৯০০ ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন। আর ইসরাইলের ১৩০০ মানুষের মৃত্যু হয়েছে।


আরো পড়ুন