• শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪, ০৯:২৭ পূর্বাহ্ন

আনোয়ারায় হযরত আবু বক্কর সিদ্দিক(রাঃ) ইবতেদায়ী মাদ্রাসার বার্ষিক ক্রীড়া ও পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠান সম্পন্ন

/ ১৬৯ বার পঠিত
আপডেট: শুক্রবার, ৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪

মোঃ সফিউল আজম রুবেল, নিজস্ব প্রতিবেদক:
আনোয়ারা উপজেলাধীন মধ্যম গহিরা গ্রামস্থ বাইঘ্যার ঘাট এলাকায় হযরত আবু বকর সিদ্দিক(রাঃ) এবতেদায়ী মাদ্রাসার বার্ষিক ক্রীড়া ও পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠান ও অভিভাবক মত বিনিময় সভা- ২৪, ৮ ফেব্রুয়ারী বৃহস্পতিবার সকাল ৮টায় অনুষ্ঠিত হয়। পবিত্র কোরআন থেকে তেলোয়াতের মাধ্যমে অনুষ্ঠান শুরু হয়।

বার আউলিয়া জামে মসজিদের খতিব মাওলানা মহসিন কবির চৌধুরীর সভাপতিত্বে এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বার আউলিয়া জামে মসজিদ পরিচালনা কমিটির সহ-সভাপতি আব্দুর রহমান(নাগু)।

অত্র মাদ্রাসার সহকারী প্রধান শিক্ষক হাফেজ দীল মুহাম্মদ কাদেরীর সঞ্চালনায় এতে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বার আউলিয়া জামে মসজিদ পরিচালনা কমিটির উপদেষ্টা শিক্ষানুরাগী হাজ্বী নবী হোসেন, বার আউলিয়া জামে মসজিদ পরিচালনা কমিটির সভাপতি মো. সেলিম, বার আউলিয়া জামে মসজিদ পরিচালনা কমিটির সহ-সম্পাদক কফিল আহমেদ, মাদ্রাসা পরিচালনা কমিটির সিনিয়র সদস্য আবু তাহের, মাদ্রাসা পরিচালনা কমিটির সিনিয়র সদস্য মো. বেলাল, বার আউলিয়া জামে মসজিদ পরিচালনা কমিটির অর্থ সম্পাদক মো. নাইয়ুম, মাদ্রাসা পরিচালনা কমিটির সদস্য মো. জাফর, মাদ্রাসা পরিচালনা কমিটির সদস্য মো. ইদ্রিস প্রকাশ রেজাইয়া, মো. ফারুক।

এতে মাদ্রাসা শিক্ষকবৃন্দের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন প্রধান শিক্ষক মো. ইরফান উদ্দিন, সহকারী শিক্ষক মো. সাজ্জাদ, সহকারী শিক্ষক আরিফ, সহকারী শিক্ষিকা মোছা. নিপা, সহকারী শিক্ষক মোছা. পিংকী।

বক্তারা তাদের বক্তব্যে অবহেলিত এলাকার প্রান্তিক জনগোষ্ঠীকে সু শিক্ষায় শিক্ষিত করার প্র‍য়াসে এলাকার শিক্ষানুরাগীদের এগিতে আসার অনুরোধ জানান।

বক্তারা বলেন, “শিক্ষাই জাতির মেরুদণ্ড। যুগের সাথে তাল মিলিয়ে চলতে হলে শিক্ষা অর্জন করতে হবে। তাই, আমাদের সকলের উচিত নিজ নিজ সন্তানদের শিক্ষার আলোয় আলোকিত করে আলোকিত মানুষ হিসেবে গড়ে তোলা।”

পরে মাদ্রাসায় অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীদের মধ্য থেকে মেধা তালিকায় প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থান অধিকারী ও মেধা তালিকায় মাদ্রাসা প্রথম হওয়া শিক্ষার্থী সহ অন্যান্য শিক্ষার্থীদের মাঝে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতার পুরষ্কার প্রদান করে অনুষ্ঠান শেষ করা হয়।


আরো পড়ুন