• রবিবার, ০৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ১১:১৮ অপরাহ্ন

সংকট মোকাবেলায় চাল-তেল কিনতে বিদেশে মন্ত্রী-সচিবরা

/ ২৪ বার পঠিত
আপডেট: মঙ্গলবার, ২৯ নভেম্বর, ২০২২

খাদ্যসংকট মোকাবেলায় চাল ও তেল আমদানি বাড়াতে বিদেশ সফর করছেন মন্ত্রী-সচিবরা। এ লক্ষ্যে তুরস্কের ইস্তাম্বুলে রয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি। আর খাদ্যমন্ত্রী ও খাদ্যসচিবের নেতৃত্বে প্রতিনিধিদল চাল আমদানি নিয়ে আলোচনা করতে ভিয়েতনাম, কম্বোডিয়া ও থাইল্যান্ড সফরে রয়েছেন।

চলমান রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে বৈশ্বিক খাদ্যসংকট দেখা দিতে পারে বলে সতর্ক করে জাতিসংঘ।

এমনকি ক্রমাগত মূল্যবৃদ্ধি দরিদ্র দেশগুলোকে আরও খারাপ অবস্থার দিকে ঠেলে দিতে পারে আশঙ্কা করে বৈশ্বিক সংস্থাটি।
এদিকে, বৈশ্বিক খাদ্য সংকট থেকে বাংলাদেশকে মুক্ত রাখতে আবাদযোগ্য প্রতি ইঞ্চি জমিতে ফসল ফলাতে দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। শুধু তাই নয়, এই সংকট মোকাবেলায় সরকারের পক্ষ থেকে ইতিমধ্যে নানা কার্যক্রম হাতে নেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে চাল আমদানি বাড়ানোর কার্যক্রম শুরু করেছে খাদ্য মন্ত্রণালয়।

জানা গেছে, সম্ভাব্য সংকটের কথা ভেবে খাদ্য মন্ত্রণালয় তিনটি দেশ থেকে ১০ লাখ টন চাল আমদানি শুরু করেছে। বেসরকারি খাতকেও শুল্ক কমিয়ে এ চাল আমদানির অনুমতি দেওয়া হয়েছে। এ অবস্থায় খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার, খাদ্যসচিব মো. ইসমাইল হোসেন ও খাদ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো. শাখাওয়াত হোসেনসহ ছয় সদস্যের প্রতিনিধিদলটি চাল আমদানি নিয়ে আলোচনা করতে ভিয়েতনাম, কম্বোডিয়া ও থাইল্যান্ড সফরে গেছেন।

খাদ্যমন্ত্রী ও খাদ্যসচিবের নেতৃত্বে প্রতিনিধিদল ২২ থেকে ২৪ নভেম্বর কম্বোডিয়া সফর করে। সেখান থেকে ২৪ থেকে ২৭ নভেম্বর ভিয়েতনাম সফর করে প্রতিনিধিদলটি। বর্তমানে দলটি থাইল্যান্ড সফরে রয়েছে। সে দেশ থেকে আগামী ১ ডিসেম্বর তাদের দেশে ফেরার কথা রয়েছে।

খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদারসহ সরকারের উচ্চপর্যায়ের প্রতিনিধিদলের ভিয়েতনাম সফর নিয়ে এরইমধ্যে সে দেশের শীর্ষস্থানীয় পত্রিকা হ্যানয় মেইল একটি সংবাদ প্রকাশ করেছে। ‘বাংলাদেশ ও ভিয়েতনাম কৃষি ক্ষেত্রে সহযোগিতা বাড়াবে’ শীর্ষক খবরে বলা হয়, ভিয়েতনামের কৃষি ও গ্রাম উন্নয়ন উপমন্ত্রী বাংলাদেশের খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদারের নেতৃত্বে প্রতিনিধিদলটির সঙ্গে বৈঠক করেছে।

বৈঠক প্রসঙ্গে হ্যানয় মেইলকে ভিয়েতনামে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত সামিনা নাজ বলেন, কৃষিক্ষেত্রে ভিয়েতনামের কৃষি ও গ্রাম উন্নয়ন মন্ত্রণালয়ের অভিজ্ঞতা বাংলাদেশ কাজে লাগাবে। দুই দেশের সহযোগিতার সম্পর্ক আরও বাড়বে। দুই দেশের বাণিজ্য ২ বিলিয়ন ডলারে পৌঁছাবে বলেও তিনি আশা করেন।

এদিকে ‘কমসেক দ্য স্ট্যান্ডিং কমিটি ফর ইকোনমিক অ্যান্ড কমার্শিয়াল কর্পোরেশন অব দ্য অর্গানাইজেশন অব দ্য ইসলামিক কর্পোরেশনের’ ৩৮তম বাণিজ্যমন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠকে যোগ দিতে বর্তমানে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি তুরস্ক সফরে রয়েছেন। অনুষ্ঠিত বৈঠকে তিনি বলেন, সামাজিক সুরক্ষায় ‘কেউ ক্ষুধার্ত থাকবে না’ কর্মসূচির মাধ্যমে বাংলাদেশের মানুষকে সহায়তা দেওয়া হচ্ছে।

এসময় মন্ত্রী আরও বলেন, বিশ্ব মহামারি কোভিড-১৯ এর ফলে সৃষ্ট আর্থ-সামাজিক সমস্যা হতে বাংলাদেশের জনসাধারণের রক্ষা করতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ সরকার প্রণোদনা প্যাকেজের মাধ্যমে ব্যাপক কর্মসূচি গ্রহণ করে সফল হয়েছে। এর সুফল বাংলাদেশের মানুষ এখন ভোগ করছে। সামাজিক সুরক্ষাবলয়ের আওতায় স্বল্প, মধ্যম ও দীর্ঘ মেয়াদি কার্যক্রমসমূহ বাস্তবায়নে মোবাইল ব্যাংকিং সেবাসহ ডিজিটাল ব্যবস্থাদির ব্যবহার সফল হয়েছে, এখন তা জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে।


আরো পড়ুন