• রবিবার, ০৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ১০:৫৩ অপরাহ্ন

প্রতীকে নয়, এই প্রার্থীর পরিচয় তার গোঁফে!

/ ৩৭ বার পঠিত
আপডেট: সোমবার, ২৮ নভেম্বর, ২০২২

ভারতের উত্তর গুজরাটের হিম্মতনগর বিধানসভা কেন্দ্র থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন মগনভাই। তার নির্বাচনি প্রতীক আপেল। তবে আপেল নয়, নিজের গোঁফ দিয়েই আলোড়ন সৃষ্টি করেছেন এই মগনভাই।
প্রায় আড়াই ফুটের গোঁফ নিয়ে গুজরাট নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন মগনভাই। খবর আনন্দবাজার পত্রিকার।

সাবেক এই সেনা কর্মকর্তা ২০১২ সালে চাকরি থেকে অবসরগ্রহণ করেন। কর্মসূত্রে কাশ্মীর সীমান্তে বন্দুক হাতে পাহারা দিয়েছেন। তবে চাকরি থেকে অবসর গ্রহণের পরেই সক্রিয় রাজনীতিতে আসেন তিনি।

এ সিদ্ধান্তের কারণ ব্যাখ্যা করে মগনভাই জানিয়েছেন, দেশের সাবেক সেনা কর্মকর্তারা এ দেশে বিশেষ কোনো সুযোগসুবিধা পান না। চাকরির শর্ত মেনে তাদের দ্রুত অবসরগ্রহণ করতে হলেও বিকল্প কোনো চাকরি দিয়ে সাহায্য করা হয় না বলে অভিযোগ তার।

তার দাবি, অবসর গ্রহণের পর তিনি নিজে এ বিষয়ে জনমত গড়ে তোলার চেষ্টা করেন; কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হয়নি। তাই সক্রিয় রাজনীতিতে নামার সিদ্ধান্ত নেন তিনি।

ভোটপ্রচারে বেরিয়ে মগনভাই জানিয়েছেন, ভোটে জিতলে তিনি সরকারের কাছে সাবেক সেনা কর্মকর্তাদের বিশেষ অবসরকালীন ভাতা দেওয়ার দাবি তুলবেন। সঙ্গে এটিও স্বীকার করেছেন, ভোটের প্রচারণায় তার সঙ্গে যে গুটিকয়েক মানুষ রয়েছেন, তা তার গোঁফ-খ্যাতির জন্যই।

নিজের গোঁফ নিয়ে গর্বিত মগনভাই বলেন, সেনাবাহিনীর চাকরিতে যোগ দেওয়ার আগে ভেবেছিলাম গোঁফটা ছেঁটে ফেলব। কিন্তু আমার ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ আমার গোঁফের প্রশংসা করেন। তারপরই গোঁফের যত্ন নিতে শুরু করি।

গোঁফের জন্য যে তিনি কত ভালোবাসা আর উপহার পেয়েছেন, তার খতিয়ান দিতে গিয়ে তিনি বলেন, গোঁফের যত্ন নেওয়ার জন্য কেউ কেউ আমায় টাকা পর্যন্ত দিয়ে গিয়েছে। কেউ কেউ আবার খুশি হয়ে দু’বোতল বিদেশি মদ দিয়ে গেছেন।

তবে নিজের জয়ের ব্যাপারে দৃঢ়প্রত্যয়ী মগনভাই। বলছেন- সাবেক সেনা কর্মকর্তারা আমার সঙ্গে রয়েছেন। ভোটে আমিই জিতব।

আড়াই ফুটের গোঁফ নিয়ে তিনি বিধায়ক হতে পারেন কিনা, তা জানার জন্য অপেক্ষা করতে হবে ৮ ডিসেম্বর পর্যন্ত।


আরো পড়ুন