• শনিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২২, ০৮:৩০ পূর্বাহ্ন




মিয়ানমারকে জবাবদিহিতায় আনতে ব্যাচেলেটের আহ্বান

/ ৪৫ বার পঠিত
আপডেট: রবিবার, ২৮ আগস্ট, ২০২২
1661662114-000022

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ

রোহিঙ্গা নির্যাতনসহ চলমান মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনায় মিয়ানমারের নিরাপত্তা বাহিনীকে জবাবদিহির আওতায় আনার আহ্বান জানিয়েছেন জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক হাইকমিশনার মিশেল ব্যাচেলেট।

তিনি বলেন, মিয়ানমারের মানবাধিকার পরিস্থিতি দিন দিন খারাপের দিকে যাচ্ছে। দেশটির সামরিক বাহিনী কায়াহ এবং কাইন ও উত্তর-পশ্চিম চীন রাজ্যে এখনও সামরিক অভিযান অব্যাহত রেখেছে। যা দেশটির নাগরিকদের জন্য উদ্বেগের।

গত ২৫ আগস্ট জেনেভায় এক সংবাদ সম্মেলনে জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক হাইকমিশনার এ আহ্বান জানান।
সম্মেলনে রোহিঙ্গা প্রসঙ্গে মিশেল ব্যাচেলেট বলেন, ‘বাংলাদেশের কক্সবাজারে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের সঙ্গে কথা বলেছি। সেখানে এক রোহিঙ্গা শরণার্থী আমাকে বলেছিলেন, তিনি ডাক্তার হওয়ার স্বপ্ন দেখেছিলেন। কিন্তু মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর নির্যাতন সইতে না পেরে দেশ ছাড়তে বাধ্য হন। তাই ডাক্তার হওয়ার স্বপ্ন বাদ দিতে হয়েছে। শরণার্থী হিসেবে আমার নিজের অভিজ্ঞতা অনেক বেশি স্বাচ্ছন্দ্যপূর্ণ ছিল। আমি আমার শিক্ষাজীবন চালিয়ে যেতে পেরেছি। সেসঙ্গে পেয়েছিলাম ভালো জীবনযাত্রা। তবে রোহিঙ্গাদের নিজ ভূমিতে ফেরত যাওয়ার আকাঙ্ক্ষা আমাকে গভীরভাবে নাড়া দিয়েছে। তবে দুঃখজনক বিষয় হচ্ছে তাঁদের স্বেচ্ছায়, সন্মান ও মর্যাদার সঙ্গে টেকসই প্রত্যাবাসনের যে সহায়ক পরিবেশ প্রয়োজন, তা এখনও তৈরি হয়নি। ’

মিশেল ব্যাচেলেট বলেন, মিয়ানমারের মানবাধিকার পরিস্থিতি ক্রমাগত খারাপের দিকে যাচ্ছে। গ্রাম ও আবাসিক এলাকায় বিমান দিয়ে গোলাবর্ষণ তীব্র হচ্ছে। দেশটির সেনাবাহিনী ও আরাকান আর্মির মধ্যকার যুদ্ধে প্রায়ই রোহিঙ্গা সম্প্রদায় পড়ে যাচ্ছে, অথবা তাঁদের ইচ্ছে করেই এ সংঘাতের মধ্যে জড়িয়ে নেওয়া হচ্ছে। সেখানে ১ কোটি ৪০ লাখ মানুষের মানবিক সহায়তা প্রয়োজন।

জাতিসংঘের মানবাধিকারবিষয়ক হাইকমিশনার বলেন, ‘মিয়ানমারের মানুষের ওপর সহিংসতা বন্ধে সেনাবাহিনীর ওপর চাপ বাড়াতে আমি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছে আহ্বান জানাই। সেসঙ্গে গণতান্ত্রিক সরকার প্রতিষ্ঠা করা এবং নিরাপত্তা বাহিনীর যেসব সদস্য মানবাধিকার লঙ্ঘনের সঙ্গে জড়িত তাঁদের জবাবদিহিতার আওতায় আনতে হবে। ’





আরো পড়ুন