• রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ১১:০৫ পূর্বাহ্ন

চৌদ্দগ্রামে বসতভিটা নিয়ে বিরোধ, মামলায় স্বাক্ষী দেয়ায় ৩ জনকে কুপিয়ে হত্যা চেষ্টার

/ ২৩৯ বার পঠিত
আপডেট: বৃহস্পতিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯

ডেস্ক রিপোর্ট:- কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে হামলা মামলায় আদালত থেকে জামিনে এসে স্বাক্ষীকে হত্যার উদ্দেশ্যে হামলা করেছে প্রতিপক্ষের লোকজন। উপজেলার কনকাপৈত ইউনিয়নের দৌলতপুর ও চিওড়া ইউনিয়নের তৈয়াশার গ্রামে পৃথক ঘটনা ঘটে। আবারও হামলার আতঙ্কে ভুগছেন ভুক্তভোগীরা।

থানায় দায়েরকৃত অভিযোগে জানা গেছে, দুই বছর ধরে চিওড়া ইউনিয়নের তৈয়াশার গ্রামের আবদুল হান্নান ও মোঃ উল্লাহর পরিবারের মাঝে বসতবাড়ির সম্পত্তি নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। এনিয়ে আবদুল হান্নান আদালতে মোঃ উল্লাহ গংয়ের বিরুদ্ধে আদালতে এলএসটি মামলা করে। মামলাটি প্রত্যাহার না করায় মোঃ উল্লাহ গং গত শুক্রবার দেশীয় অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে আবদুল হান্নানের পরিবারের উপর হামলা করে। এতে আবদুল হান্নান, হোমিও চিকিৎসক এনামুল হক মোল্লা, কাজল বেগম, নাজমুল হোসেন ও মরিয়ম বেগম আহত হয়।

এছাড়াও হামলাকারীরা স্বর্ণের চেইনসহ মুল্যবান মালামাল লুট করে। স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার শেষে চৌদ্দগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়। পরে তাদেরকে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এ ঘটনায় আবদুল হান্নান বাদি হয়ে মোঃ উল্লাহ ও মোঃ শিপনসহ চারজনের নাম উল্লেখ পূর্বক থানায় মামলা করে। ওই মামলায় স্বাক্ষী হন আবদুল হান্নানের আত্মীয় তারাশাইল বাজারের হোমিও চিকিৎসক ও ইউনিয়ন আ’লীগের স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক এনামুল হক মোল্লা। এতে ক্ষীপ্ত হয়ে রোববার রাতে ডাঃ এনামুল হক মোল্লা বাড়ি ফেরার পথে বিবাদী পক্ষের অস্ত্রধারী লোকজন আতাকরা-ধোড়করা সড়কের দৌলতপুর এলাকায় তাঁর উপর অতর্কিত হামলা হত্যার চেষ্টা করে।

এ সময় মোটর সাইকেলের পিছনে থাকা ভাগ্নে নাজমুল ইসলামও আহত হন। খবর পেয়ে স্থানীয়রা আহত দুইজনকে উদ্ধার শেষে চৌদ্দগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়। আশঙ্কাজনক অবস্থায় ডাঃ এনামুল হক মোল্লাকে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

স্থানীয়রা অবিলম্বে ডাঃ এনামুল হক মোল্লার উপর হামলাকারীদের গ্রেফতারের জন্য পুলিশ প্রশাসনের নিকট জোরদাবি জানিয়েছেন।


আরো পড়ুন