• বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২, ১২:১৪ পূর্বাহ্ন




সৌদি প্রবাসীকে কুপিয়ে জখম করলেন আওয়ামী লীগ নেতার ছেলে ইসতিয়াক

/ ২০ বার পঠিত
আপডেট: মঙ্গলবার, ২২ নভেম্বর, ২০২২
সৌদি প্রবাসীকে কুপিয়ে জখম

ঢাকার নবাবগঞ্জ উপজেলার চুড়াইনের পাশ্ববর্তী গ্রাম শ্রীনগর উপজেলার খাহ্রা গ্রামের আমীর হোসেন উজ্জল (৪৫) নামে এক সৌদি প্রবাসীকে কুপিয়ে মারাত্মক জখম করেছে স্থানীয় বখাটেরা। গত শুক্রবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় উজ্জলের বোনের জামাই বাদী হয়ে শ্রীনগর থানায় লিখিত অভিযোগ করেন। অভিযুক্তরা হলেন,স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুল মান্নানের ছেলে ইশতিয়াক, ইন্তাজ ও ইনজামুল।

আহত উজ্জলের দুলা ভাই ওয়াহিদুজ্জামান অভিযোগে বলেন,আমি একজন ডিস ব্যবসায়ী ও চূড়াইন বাজারে আমার জেনারেটরের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান আছে। ২০২০ সালে স্থানীয় ইশতিয়াক,ইন্তাজ ও ইনজামুল আমার কাছে চাঁদা দাবী করলে আমি রাজী না হলে তারা আমার উপর চড়াও হয়ে দোকানে হামলা চালায়।

এরপর গ্রামের গণ্যমান্য ব্যক্তি বর্গ বিষয়টি মীমাংসা করে দিলেও গত শুক্রবার সন্ধ্যায় বাড়ির সামনে রাস্তার উপর পেয়ে আমার শ্যালক উজ্জলকে হাতুড়ি ও চাপাতি দিয়ে এলোপাতারি কুপিয়ে মারাত্মক রক্তাক্ত জখম করে। তার ডাক চিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে আসলে বখাটেরা পালিয়ে যায়। পরে তাকে ষোলঘর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তার অবনতি দেখে তাকে ঢাকা স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল হাসপাতালে প্রেরণ করেন।

সৌদি প্রবাসীকে পূর্ব শত্রুতার জেরে কুপিয়ে জখম আহত উজ্জল বলেন,শুক্রবার আমি আমার বন্ধুর সাথে ঘুরতে যাই। আমার বাড়ির আশপাশে তারা ওঁত পেতে ছিলো। সন্ধ্যায় বাড়িতে ঢুকার সময় ইশতিয়াক,ইন্তাজ ও ইনজামুল আমার উপর হামলা করে। তাদের হাতে থাকা হাতুড়ি ও চাপাতি দিয়ে আমাকে কুপিয়ে রক্তাক্ত জখম করে। তিনি বলেন,তাদের বিরুদ্ধে নেশাসহ বিভিন্ন অপকর্মের অভিযোগ থাকায় গ্রামে কেউ কথা বলার সাহস পায় না। এমনকি তারা অন্যায় করলে চেয়ারম্যান মেম্বাররা বিচার করার সাহস‌ও পায় না।

সৌদি প্রবাসীকে পূর্ব শত্রুতার জেরে কুপিয়ে জখম অভিযুক্তদের বাবা বাড়ৈখালী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মান্নান বলেন,ডিসের ব্যবসা আমার ছিলো বর্তমানে আমি আমার ভাতিজা ওয়াহিদুজ্জামান কে লিখিতভাবে দিয়ে দিয়েছি। আমার ছেলেরা ঢাকায় লেখাপড়া করে। আমি কোন অন্যায়কারীকে প্রশ্রয় দেই না। অন্যায়কারী যেই হউক আমার ছেলে হলেও তার বিচার হবে। এ বিষয়ে শ্রীনগর থানার উপ-পরিদর্শক খন্দকার জিয়াউল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন,সরেজমিনে গিয়েছিলাম মামলা পক্রিয়াধীন।





আরো পড়ুন