• শুক্রবার, ০৭ অক্টোবর ২০২২, ০৩:১৮ পূর্বাহ্ন
171764904_843966756543169_3638091190458102178_n

“বানারীপাড়ার আ.লীগের গুরুত্বপূর্ন পদ বাগিয়ে নিতে তৎপর হত্যা মামলার আসামীরা”

/ ২০৪ বার পঠিত
আপডেট: রবিবার, ২৪ নভেম্বর, ২০১৯

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ বানারীপাড়া উপজেলা জাসদের সাবেক নেতা মো : হুমাউন কবীর হত্যা মামলার আসামীদের আওয়ামী লীগের কমিটিতে স্থান না দেওয়ার আহবান জানিয়েছেন নিহত কবিরের ভাই এস এম কায়কোবাদ। এ বিষয়ে বরিশাল জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি-সম্পাদক বরাবর একটি আবেদন সম্বলিত চিঠি পাঠিয়েন তিনি। চিঠির অনুলিপি প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা বরাবর প্রেরন করা হয়েছে বলেও জানান হুমাউনের ভাই এস এম কায়কোবাদ।

সন্ত্রাসীদের হাতে নির্মম ভাবে খুন হওয়া জাসদ নেতা কবিরের ভাই এস এম কায়কোবাদ জানান, তার ভাই হুমাউন কবীবকে যারা নির্মম ভাবে হত্যা করেছে তারা এখন এলাকায় প্রকাশ্য দিবালোকে বীর দর্পে ঘুরে বেড়াচ্ছে। এমনকি হত্যাকারীরা ক্ষমতাসীন দলের রাজনীতির সাথে যুক্ত থেকে হুমাউন কবিরের পরিবারকে নানান ভাবে হুমকি ধামকি ও ভয় ভীতি প্রদর্শন করছে। একটি নির্মম হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত থাকার পরও তারা এলাকায় কি করে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে সক্রিয় ভুমিকা পালন করতে পারে তা তার বোধগম্য নয়।

তিনি বলেন, বানারীপাড়ার চাখার ইউনিয়নের সলিয়া বাকপুর এলাকার বাসিন্দা কবির হত্যা মামলার অন্যতম আসামী সলিয়া বাকপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জিয়াউল হক মিন্টু, বাকপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সালাম হাওলাদার ও চাখার ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মজিবুল হক টুকুসহ তাদের সহয়োগীরা এলাকায় এখন বীর দর্পে ঘুরে বেডাচ্ছে। এমনকি তারা ক্ষমতাসীন দলের নেতাদের ছত্র ছায়ায় থেকে এখনো ভুমি দখল, সন্ত্রাসী-রাহাজানিসহ নানান অপকর্মের সাথে যুক্ত হচ্ছে। আসন্ন আওয়ামী লীগের কাউন্সিলে উল্লেখিতরা দলের গুরুত্বপূর্ন পদ বাগিয়ে নেওয়ার চেষ্ঠা করছে। তিনি বলেন ডিজিটাল ও স্বনির্ভর সোনার বাংলাদেশ গড়ার লক্ষে দলের মধ্যে শুদ্ধি অভিযান চালাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা। এছাড়া দাগী ও সন্ত্রাসীদের দলের কোন পদে রাখা আওয়ামী লীগের গঠনতন্ত্রের পরিপন্থি। তাই আসন্ন কাউন্সিলে যাহাতে সালাম হাওলাদার ও তার সহয়োগীরা দলের কোন পদে আসীন না হতে পাওে সেজন্য তিনি জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি, দক্ষিনাঞ্চলের আওয়ামী লীগের অভিভাবক আবুল হাসানাথ আব্দুল্লাহ ও সাধারন সম্পাদক এ্যাডভোকেট তালুকদার মো : ইউনুছের কাছে দাবী জানান।

উল্লেখ্য, ২০১৩ সালের ১৯ জুলাই জাসদ নেতা মো: হুমাউন কবীরকে নির্মম ভাবে কুপিয়ে হত্যা করে সন্ত্রাসীরা। এ ঘটনায় সলিয়া বাকপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জিয়াউল হক মিন্টু, বাকপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সালাম হাওলাদার ও চাখার ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মজিবুল হক টুকুসহ ১৪ জনকে আসামী করে নিহত হুমাউন কবিরের ভাই তরিকুল ইসলাম আপনুর বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। ওই মামলায় সলিয়া বাকপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জিয়াউল হক মিন্টু, বাকপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সালাম হাওলাদার ও চাখার ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মজিবুল হক টুকুসহ ১০ জনের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জসিট দাখিল করে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা।


আরো পড়ুন