• বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২, ০৭:০১ পূর্বাহ্ন




প্রবাসীর বাড়িতে ডাকাতি, ৭২ ঘন্টার অভিযানে ৮ জন ডাকাতসহ স্বর্ণলংকার উদ্ধার

/ ২৮ বার পঠিত
আপডেট: মঙ্গলবার, ২২ নভেম্বর, ২০২২
গাঁজাসহ মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার

ঘটনার ভুক্তভোগী ভিকটিম মোহাম্মদ সরোয়ার চৌধুরী (৩৫), পিতা-মোহাম্মদ আলী চৌধুরী, মাতা-উম্মে সালমা, সাং-সুলতান পাড়া, ছত্রপাড়া, হাজী মোহাম্মদ আলী চৌধুরীর বাড়ি, থানা-রাউজান, জেলা-চট্টগ্রাম একজন প্রবাসী ও রেমিট্যান্স যোদ্ধা। তিনি গত ২৭ অক্টোবর ২০২২খ্রিঃ তারিখ দুবাই হতে বাংলাদেশে এসেছেন। গত ২৮ অক্টোবর ২০২২খ্রিঃ তারিখ দিবাগত রাতে ভুক্তভোগী ভিকটিম তার মামার মেয়ের বিয়ের অনুষ্ঠান উপলক্ষে সে ও তার পরিবারের লোকজন নিজ বাড়ি হতে আধা কিলোমিটার দূরে মামার বাড়িতে যান।

সে সময় ঘরে তার বৃদ্ধ বাবা ছাড়া আর কোনো মানুষ ছিলোনা। এই সুযোগে গভীর রাতে একদল ডাকাত ভিকটিম মোহাম্মদ সরোয়ার চৌধুরীর পাকা ঘরের পিছনে লোহার জানালার গ্রিল কেটে ঘরে প্রবেশ করে তার বৃদ্ধ বাবা কে কম্বল দিয়ে চেপে ধরে চোখ মুখ ও হাত পা বেধে গলায় চাকু ধরে হত্যার ভয় দেখিয়ে জিম্মি করে আলমারির চাবি নিয়ে নেয়। ডাকাত দলের মধ্যে হতে মোঃ মুসা নামক একজন ব্যক্তি ভিকটিমের বাবার গলায় চাকু ধরে রাখে এবং চিৎকার করলে জবাই করে ফেলবে বলে হুমকি প্রদান করে।

এসময় ডাকাত দলের অন্যান্য সদস্যরা আলমারীতে রাখা অবস্থায় থাকা ভিকটিমের স্ত্রী, মা, বোনের স্বর্ণালংকার এবং অপরাপর আত্বীয় স্বজনেরr আমানত রাখা স্বর্ণালংকারসহ সর্বমমোট ৭০ ভরি স্বর্ণালংকার লুট করে। এছাড়াও ডাকাত দল ভিকটিমের মামাতো বোনের বিবাহের জন্য ঘরে রাখা নগদ ০৫ ল¶ টাকা, উন্নতমানের ০৫ মোবাইল এবং ০১টি স্যামসাং ব্রান্ডের ট্যাব লুট করে। উল্লেখ্য, উক্ত ডাকাত দল পরিকল্পনা করে গত ২৯ অক্টোবর ২০২২খ্রিঃ তারিখ রাত আনুমানিক ০১.০০ ঘটিকা হতে ভোর ০৪.০০ ঘটিকা পর্যন্ত ভিকটিমের বৃদ্ধ বাবাকে বাধা অবস্থায় রেখে উপরে উল্লেখিত মালামালসহ বাড়ি থেকে বেড় হয়ে যায়। পরবর্তীতে গত ০৯ নভেম্বর ২০২২খ্রিঃ তারিখ ভুক্তভোগী ভিকটিম মোহাম্মদ সরোয়ার চৌধুরী বাদী হয়ে উক্ত দুর্র্ধষ ডাকাতির ঘটনায় অজ্ঞাতনামা আসামী করে চট্টগ্রাম জেলার রাউজান থানায় একটি ডাকাতি মামলা দয়ের করে যার মামলা নং-৭৭/০৯ নভেম্বর ২০২২খ্রিঃ, ধারা ৪৫৭/৩৮০ পেনাল কোড ১৮৬০।

উক্ত দুর্র্ধষ ডাকাতির ঘটনাটি লোমহর্ষক , চা ল্যকর ও রহস্যজনক হওয়ায় ডাকাতির মূল আসামী গ্রেফতার ও মূল রহস্য উদঘাটনের জন্য ভুক্তভোগী ভিকটিম মোহাম্মদ সরোয়ার চৌধুরী কর্তৃক অধিনায়ক, চট্টগ্রাম র‍্যাব-০৭ বরাবর একটি লিখিত আবেদনের প্রেরণ করলে চট্টগ্রাম র‍্যাব-০৭ উক্ত ডাকাতির ঘটনার সাথে জড়িত মূল আসামীদের গ্রেফতারের লক্ষ্যে তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার ও গোয়েন্দা নজরদারী অব্যাহত রাখে।

এরই ধারাবাহিকতায় বিশেষ সংবাদের ভিত্তিতে গত ২১ নভেম্বর ২০২২ খ্রিঃ তারিখ বিকেলে চট্টগ্রাম র‍্যাব-০৭ এর একটি চৌকষ আভিযানিক দল চট্টগ্রাম জেলার রাউজান থানাধীন দক্ষীণ গহিরা সিবের ঘাট এলাকার একটি বাসা বাড়ি হতে আসামী ১। মুসা কে গ্রেফতার করা হয় এবং তার হেফাজত হতে ডাকাতি হওয়া নগদ ০৫ লাখ টাকা এবং ডাকাতি হওয়া স্বর্ণালংকার বিক্রয়ের ১,৯৯,০০০/- টাকাসহ সর্বমোট-৬,৯৯,০০০/-টাকা উদ্ধার করার হয়। ডাকাত দলের সদস্য ধৃত আসামী মুসার দেয়ার তথ্য মতে ডাকাত দলের সদস্য ২। সাইদুল ইসলাম প্রকাশ সাইফুল কে একই দিনে চট্টগ্রাম জেলার রাউজান থানাধীন গহিরার উত্তর-পূর্ব কোতোয়ালী ঘোনা দলই নগরস্থ একটি বাড়ি হতে গ্রেফতার করা হয়। পরবর্তীতে তাদের দেয়া তথ্যমতে রাউজান ও হাটহাজারী থানা এলাকার বিভিন্ন স্থান হতে ডাকাত দলের অন্যান্য সদস্য ৩। খোরশেদুল আলম (২৮), ৪। সাজ্জাদ হোসেন (২৭), ৫। মোঃ বাপ্পি (২৬), ৬। সজল শীল (২৭), ৭। মোঃ ইদ্রিস প্রকাশ কাজল (৩৪)’দের গ্রেফতার করা হয় এবং ডাকাতি কাজে ব্যবহার্য গ্রিল কাটার, ছোরা, টর্চ লাইটসহ ডাকাতি হওয়া বিভিন্ন ধরণের সর্বমোট ৪৬ ভরি স্বর্ণালংকার ও কয়েন এবং ডাকাতি হওয়া স্বর্ণের বিক্রয়লব্দ মোট ৩০,০১,৬০০/- টাকা উদ্ধার ও ডাকাতি মালামাল গ্রহণকারী ৮। বিপ­ব চন্দ্র সাহা(৩৮) এর জুয়েলার্সের দোকান হতে গ্রেফতার করা হয়।

পরবর্তীতে উপস্থিস সাক্ষীদের সম্মুখে আটককৃত আসামীদের জিজ্ঞাসাবাদে তারা উল্লেখিত ঘটনার সাথে জড়িত থাকার কথা অকপটে শিকার করে। গ্রেফতারকৃত আসামীদের বিরুদ্ধে পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের নিমিত্তে সংশ্লিষ্ট থানায় হস্তান্তর করা হয়।





আরো পড়ুন