• বৃহস্পতিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০১:৪৪ পূর্বাহ্ন

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ার শিক্ষার্থী ও বাস শ্রমিকদের মাঝে সংঘর্ষ আহত ১৫ ছাএ

/ ৪৭ বার পঠিত
আপডেট: সোমবার, ৪ ডিসেম্বর, ২০২৩

মোঃমাহফুজ আনোয়ার সৌরভ, কুমিল্লা প্রতিনিধি:
কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজ ছাত্রদের ওপর হামলার অভিযোগ উঠেছে কুমিল্লার শাসনগাছা পরিবহন শ্রমিকদের বিরুদ্ধে৷ সোমবার (৪ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় এ ঘটনা ঘটে শাসনগাছা বাস টার্মিনাল এলাকায়। এ ঘটনায় আশঙ্কাজনক অবস্থায় ৪ ছাত্রকে হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়েছে। আহত আরও ১১ ছাত্র হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। তাদের কারো মাথা ফাটা, কারো শরীরে কোপের চিহ্ন।

আহতরা হলেন, পরিসংখ্যান-২য় বর্ষের শাকিল, রসায়ন ৩য় বর্ষের হাসান ও আরাফাত, বাংলা-৪র্থ বর্ষের হাবিব অর্থনীতি ১ম বর্ষের ইমরান, ইসলামের ইতিহাস-৩য় বর্ষ কাহহার, গণিত-৪র্থ বর্ষের রতন, রাষ্টবিজ্ঞান-৪র্থ বর্ষের জামশেদ, ব্যবস্থাপনা ২য় বর্ষের আরমান, অর্থনীতি-৪র্থ বর্ষের নিলয়, রাষ্টবিজ্ঞান-২য় বর্ষের সাকিব, রাষ্টবিজ্ঞান-মার্স্টাস সানি।

আহত আব্দুল কাহহার জানান, সোমবার বিকেলে রাস্তা পারাপারের সময় তাকে একতা নামের বাস চাপা দেয়। এতে তিনি আহত হওয়ায় চালককে সাবধানে গাড়ি চালাতে বলে। এসময় সঙ্গে থাকা অপর ছাত্রসহ তর্কাতর্কিতে জড়িয়ে পড়ে বাস চালক ও হেলফাররা। এসময় ওই দুই ছাত্রকে বাস স্ট্যান্ডে আটকে রাখে চালক ও হেলফার। আটকে থাকা ছাত্ররা সহপাঠীদের জানালে সহপাঠীরা তাদের উদ্ধার করতে যায়। এদিকে বাস চালক ও হেলফাররা তাদের ছাত্রদের প্রতিহত করতে রাস্তায় দেশিয় অস্ত্র, লাঠি ও ইটপাটকেল নিয়ে অবস্থা নেয়। ছাত্ররা বাস স্ট্যান্ডে গিয়ে ওই আহত ছাত্রদের আনতে গেলে অতর্কিত হামলা করে বাস-চালক ও হেলফাররা। এসময় তাদের সঙ্গে যোগ দেয় স্থানীয় একটি চক্র। এতে করে ঘটনাস্থলে যাওয়া ২০ ছাত্রকে তারা পিটিয়ে আহত করে।

আহত আরেক ছাত্র রতন বলেন, আমাদের তারা টার্গেট করে হামলা করেছে। আমার কাছে বাইক বিক্রির এক লাখ ৬০ হাজার ছিল। সেগুলো নিয়ে গেছে। আমাদের সহপাঠীদের পাঁচটির বেশি মোবাইল তারা নিয়ে গেছে। তারা আমাদের ওপর অতর্কিত হামলা করায় আমরা রাস্তায় পড়ে থাকি। পরে স্থানীয়রা আমাদের অটো রিকশায় উঠিয়ে দেয়।

সরেজমিনে হাসপাতালে গিয়ে জানা গেছে, ৯জন ছাত্র কুমিল্লা জেনারেল (সদর) হাসপাতালে বর্তমানে সেবা নিচ্ছে। একজন হাসপাতালে ভর্তি। পাশেরর একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছে আরও ৫জন।

কুমিল্লা জেলা সিভিল সার্জল ডা. নাছিমা আকতার বলেন, ভিক্টোরিয়া কলেজের ১১ শিক্ষার্থী কুমিল্লা জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছে। এর মাঝে চারজনকে ভর্তি দিয়েছেন। বাকীরা চিকিৎসা নিয়ে চলে যেতে পারবে। একতা সার্ভিসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইকবাল হোসেন বলেন, ছাত্ররা প্রথম হামলা করেছে। কলেজ শিক্ষার্থীদের হামলায় আমার বাস চালকের অবস্থা খারাপ। একজনকে কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে তাকে রাখেনি। তাকে চান্দিনা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাঠানো হয়েছে।

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজ উপাধ্যক্ষ মৃনাল কান্তি গোস্বামী বলেন, আমাদের ১৫ ছাত্রের অবস্থা আশঙ্কাজনক। তাদের হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়েছে। একজনের মাথায় ১২টি সেলায় লেগেছে। কারো হাত ভেঙেছে কারো পা। আমাদের ছেলেরা রক্তাক্ত অবস্থায় হাসপাতালে এসেছে। অধ্যক্ষ হাসপাতালে ভর্তি। তাই আসতে পারেননি। কাল স্যারসহ আলোচনা করে কি করা যায় ব্যবস্থা নেব।

কুমিল্লার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) কামরান হোসেন বলেন, শাসনগাছায় একটি ঘটনা ঘটেছে শুনেছি। এঘটনায় অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেব।


আরো পড়ুন