• মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০১:১৪ পূর্বাহ্ন
171764904_843966756543169_3638091190458102178_n

কোমা থেকে জীবনে ফেরা হল না

/ ৫০ বার পঠিত
আপডেট: সোমবার, ১৫ আগস্ট, ২০২২
অ্যান হেচ

বিনোদন ডেস্কঃ

সড়ক দুর্ঘটনায় মারাত্মক আহত হলিউডি অভিনেত্রীর অ্যান হেচ এক সপ্তাহ ধরে ছিলেন লাইফ সাপোর্টে; সেখান থেকে তার আর জীবনে ফেরা হল না।

পরিবারের পক্ষ থেকে রোববার (১৪ আগস্ট) তার মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করে বলা হয়, অ্যান হেচের লাইফসাপোর্ট খুলে নেওয়া হয়েছে।

দুই ছেলের মা অ্যান হেচের বয়স হয়েছিল ৫৩ বছর। তার ইচ্ছা ছিল, মৃত্যুর পর যেন তার দেহ দান করে দেওয়া হয়।

সিএনএন লিখেছে, বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী অ্যান হেচ টেলিভিশন ও চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন চার দশকের বেশি সময় ধরে। ‘ওয়াচ দ্য ডগ’, ‘সিক্স ডেইজ সেভেন নাইটস’ এবং ‘ডনি ব্রাস্কো’ মত জনপ্রিয় হলিউডি ফিল্মে তাকে দেখা গেছে।

‘মেন ইন ট্রিজ’ কমেডি সিরিজে অ্যানের সহ অভিনেতা এবং সাবেক সঙ্গী জেমস টুপার ইনস্টাগ্রামে ছেলেদের সঙ্গে অ্যান হেচের ছবি পোস্ট করে লিখেছেন, “একজন চমৎকার নারী, অভিনেত্রী এবং মায়ের জন্য প্রার্থনা, আমরা তোমাকে ভালোবাসি।“

গত ৫ অগাস্ট লস এঞ্জেলেসের মার ভিস্তা এলাকায় দোতলা একটি বাড়ির সঙ্গে ধাক্কা খায় অ্যান হেচের গাড়ি। ওই দুর্ঘটনায় আগুন ধরে যায় তার গাড়িতে।

অভিনেত্রীকে দ্রুত উদ্ধার করে ওয়েস্ট হিল হাসপাতালের গ্রসম্যান বার্ন সেন্টারে নিয়ে যাওয়া হয়। তখনই জানা গিয়েছিলেন তার শরীরের বেশিরভাগ অংশ পুড়ে গেছে। মস্তিষ্কও মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

চিকিৎসা চলার মধ্যেই কোমায় চলে যান অ্যান হেচ। পরিবারের সদস্যরাও আশা ছেড়ে দিয়েছিলেন। নয় দিন মৃত্যুর সঙ্গে লড়াইয়ের পর হার মানলেন এই অভিনেত্রী।

যুক্তরাষ্ট্রের ওহাইওয়ে ১৯৬৯ সালে ২৫ মে অ্যান হেচের জন্ম। ১৯৮৭ সালে জনপ্রিয় ধারাবাহিক ‘অ্যানাদার ওয়ার্ল্ডে’ অভিনয়ের মধ্য দিয়ে তার ক্যারিয়ারের শুরু।

ওই টিভি ধারাবাহিকই তাকে পৌঁছে দেয় খ্যাতির শীর্ষে। তরুণ অ্যান হেচ জিতে নেন ‘ডেটাইম অ্যামি’ পুরস্কার। পরে ‘ওয়াচ দ্য ডগ’ ও ‘ডনি ব্রাস্কো’ চলচ্চিত্রে কাজ করে তিনি সিনেমা জগতে পরিচিত মুখ হয়ে ওঠেন।

হলিউড অভিনেতা হ্যারিসন ফোর্ডের সঙ্গে জুটি বেঁধে ১৯৯৮ সালে ‘সিক্স ডেইজ সেভেন নাইটস’ এ অভিনয় করেন তিনি। ২০০০ সালে এইচবিওর সিনেমা ‘ইফ দিস ওয়ালস কুড টক টু’ এর একটি অংশ তিনি পরিচালনাও করেন।

কোয়ান্টিকো সিরিজে প্রিয়াংকা চোপড়ার সঙ্গেও অভিনয় করেছেন এই অভিনেত্রী। ‘শিকাগো পিডি’, সেভ মি’র মত বেশ কিছু টেলিভিশন সিরিজে তিনি অভিনয় করেছেন গত কয়েক বছরে।

১৯৯৭ সালে জানা যায় অ্যানা হেচ এবং ইলেন ডিজেনারেস সমকামী দম্পতি হিসেবে বাস্তব জীবনে জুটি বাঁধছেন, সে সময় বিষয়টি শোরগোল তরে। ২০০০ সালে তাদের বিচ্ছেদের খবর আসে।

গত বছরে অ্যানা হেচ ‘সিক্স পেইজকে এক সাক্ষাৎকারে বলেছিলেন, অ্যালেনের সঙ্গে সম্পর্কে তিনি নিজেকে হারিয়ে ফেলেছিলেন।

অ্যান হেচ ২০০১ সালে তার স্মৃতিকথা ‘কল মি ক্রেজি’তে জীবনের একটি যন্ত্রণার কথাও তুলে ধরেন। শৈশবে নিজের বাবার কাছে যৌন নির্যাতনের শিকার হতে হয়েছিল তাকে। এর জেরে তাকে মনের অসুখে ভুগতে হয়েছে ত্রিশ বছর।

সিএনএন এর ল্যারি লিংকে এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেছিলেন, ওই ঘটনার পর তার ব্যক্তিত্ব দুই ভাগ হয়ে গিয়েছিল। তার একটি ছিল তার নিজের, অন্যটি এক শিশুর, যে সেই ভয়ঙ্কর অভিজ্ঞতার পর জীবনের সঙ্গে মানিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করছে।

“আজ আমি যেখানে দাঁড়িয়ে আছি, সেখানে পৌঁছাতে দীর্ঘ সময় লেগেছে। আমাকে অনেক বাস্তব ঘটনা এবং লজ্জার মধ্য দিয়ে যেতে হয়েছে।… আমার মনে হয় না, এর চেয়ে দ্রুত আমি বিষয়গুলো সামাল দিতে পারতাম।”


আরো পড়ুন