• বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ০৫:২৪ অপরাহ্ন
শিরোনাম
সংবাদ প্রকাশের জেরে দৈনিক গণকন্ঠের সাংবাদিককে প্রাণনাশের হুমকি দিলেন এসআই‌ আবু তারেক দিপু র‍্যাব সদস্য পরিচয়ে চাঁদাবাজি করতে গিয়ে এনামুল হক র‍্যাবের হাতে আটক ! ত্রিশালে ৩শ কে‌জি নিষিদ্ধ ‌পিরানহা মাছ জব্দ ! গাইবান্ধায় কাপড়ের দোকানে আগুন ! কুমিল্লায় পূজামন্ডপে কোরআন অবমাননাকারীদের শাস্তির দাবিতে ধর্মপাশায় বিক্ষোভ মিছিল দৃষ্টিহীনদের বিনামূল্যে কম্পিউটার প্রশিক্ষণ দিচ্ছেন ঢাবির দৃষ্টি প্রতিবন্ধী শাহীন আলম কেনাকাটা করে ফেরার পথে দুই বোনকে শ্লীলতাহানি ও মারধর, অভিযুক্ত গ্রেপ্তার ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় একই ইউপিতে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী স্বামী-স্ত্রী শপথ নিলেন স্থায়ী নিয়োগ পাওয়া ৯ বিচারপতি তথ্য প্রতিমন্ত্রী শপথ ভঙ্গ করেছে, তার পদত্যাগ করা উচিত: জিএম কাদের

বরগুনার তালতলী উপজেলার উর্মিলা দেবীর ভেঙ্গে পরা ঘর নির্মানের কাজ শুরু করছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার

হাফিজুর রহমান, তালতলী (বরগুনা) প্রতিনিধি  / ১৩৫ Time View
Update : রবিবার, ৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১
বরগুনার তালতলী উপজেলার উর্মিলা দেবীর ভেঙ্গে পরা ঘর নির্মানের কাজ শুরু করছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার

বরগুনার তালতলী উপজেলার বেহেলা গ্রামের, উর্মিলার দেবীর নির্মাণাধীন ঘড়ের দেয়ালের
কিছু অংশ ভেঙে পরে গত ২রা ফেব্রুয়ারী রাতে, খবর পেয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার  মোঃ আসাদুজ্জামান ছুটে যান উর্মিলা দেবীর বাড়ি। নির্মাণাধীন ঘড়ের দেয়াল ভেঙে পরার কারণ খুজতে থাকেন সংবাদ কর্মীরা।
এ সময় অনুসন্ধানে করে পাওয়া যায়, লবন পানি দিয়ে সিমেন্ট বালু মিশ্রিত করা হয়েছে। এবং নরম মাটিতে বেস করায়, তিন ফুট উচ্চতার দেয়াল ভেঙে পরে।  ঘটনার খবর পেয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান রেজবি-উল কবির,  উপজেলা নির্বাহী অফিসার (অতিরিক্ত) মোঃ আসাদুজ্জামান মিষ্টি পানি দিয়ে নতুন করে বেস করে ঘড় পূর্ণ নির্মাণের নির্দেশ দেন। উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নির্দেশ মোতাবেক উর্মিমালা দেবীর ঘড় পূর্ণ নির্মাণ কাজ চলমান।
এ বিষয় উর্মিলা দেবী বলেন ইউ এন ও স্যার ও উপজেলা চেয়ারম্যানের নির্দেশে কাজের  মান  ভালো হচ্ছে। তাই শেখ মুজিবের মাইয়া প্রধানমন্ত্রী  শেখ হাসিনা ও উপজেলা চেয়ারম্যান রেজবি-উল কবির এবং ইউ এন ও আসাদুজ্জামানের জন্য দোয়া করি ভগবান তাদের হায়াত দিয়ে বাচিয়ে রাখুক।
তালতলী উপজেলা নির্বাহী অফিসার (অদাঃ) মোঃ আসাদুজ্জামান বলেন,শেখ হাসিনার উপহারের সকল ঘর সুন্দর টেকসই ও ভালো মানের নির্মাণের দিকে নজর দিচ্ছি। আমি ঘরের কাজ করতে গিয়ে কত শত মানুষের দুঃখ-দুর্দশার গল্প শুনেছি। মানুষের অসহায়ত্ব দেখেছি। এই উপজেলায় ১০০ পরিবার বাড়ি পাচ্ছে।এটা প্রধানমন্ত্রীর মহান উদ্যোগ। আর আগে কেউ এমন উদ্যোগ নেয়নি। এই উদ্যোগে মানুষের মুখে হাসি ফুটেছে, এটা অনেক বড় প্রাপ্তি।
উল্লেখ্য মুজিববর্ষ উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের অশ্রায়ন-২ প্রকল্পের অধীনে উপজেলায় ভূমিহীন ও গৃহহীনদের জন্য  ইতোমধ্যে ১০০টি ঘর নির্মাণের কাজ চলছে। দুই শতাংশ খাস জমির ওপর প্রতিটি টিন শেড ঘর নির্মাণে ব্যয় ধরা হয়েছে ১ লাখ ৭২ হাজার টাকা। ৩৯৪ বর্গফুটের ওই বাড়িতে নির্মাণ করা হচ্ছে দুটি কক্ষ, রান্নার জায়গা ও একটি টয়লেট। টিনশেডের এই ঘরে একটি পরিবার স্বাচ্ছন্দে বসবাস করতে পারবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category