• শুক্রবার, ০৫ মার্চ ২০২১, ০১:৫৬ অপরাহ্ন
Headline
জয়পুরহাটের কালাইয়ে ছুরিকাঘাত করে টাকা ছিনতাই! ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে আটক সকল সাংবাদিককে মুক্তি দিতে হবে সাংবাদিক নির্যাতন, হত্যা, মিথ্যা মামলা ও হয়রানীর প্রতিবাদে উপজেলা প্রেসক্লাবের কলম বিরতি! জয়পুরহাটে জাতীয় ভোটার দিবস পালিত চার পথ নিরাপদের দাবিতে সুনামগঞ্জে সেভ দ্য রোড-এর সমাবেশ! ধর্মপাশায় সুনুই জলমহাল লুটের ঘটনায় উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান রোকন সহ ৪২ জনের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ! দুই মাস যাবত ইলিশ ধরা বন্ধ !   প্রায় ২৫ কোটি টাকা আগুনে পুড়েছাই২৫ দোকান,আতঙ্কে ব্যবসায়ীর হার্টঅ্যাটাক! গাইবান্ধা ফুলছড়িতে আওয়ামীলীগের নেতা লাল মিয়া সরকারের খুনিদের দ্রুত গ্রেফতারের দাবিতে সড়কে বিক্ষোভ অবরোধ জামালপুরের তিনটি পৌরসভা নির্বাচনে নৌকার বিজয়!

হত্যার ৬ বছর পর মৃত ব্যক্তি জীবিত আদালতে হাজির !

Reporter Name / ১৬৩ Time View
Update : বৃহস্পতিবার, ১ অক্টোবর, ২০২০
‘খুন হওয়ার’ ‘মৃত’ ব্যক্তি হঠাৎ আদালতে হাজির, চমকে উঠল সবাই
‘খুন হওয়ার’ ‘মৃত’ ব্যক্তি হঠাৎ আদালতে হাজির, চমকে উঠল সবাই

ছেলে নিখোঁজ হওয়ার পর অপহরণ, খুন ও গুমের অভিযোগ এনে ৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেছিলেন বাবা। চাক্ষুস সাক্ষী’ জবানবন্দীও দিয়েছেন আদালতে, এরই পরিপ্রেক্ষিতে ৫ আসামির কেউ দেড় বছর, কেউ আবার দেড় মাস জেল হাজতে ছিলেন। কিন্তু ঘটনার ৬ বছরের মাথায় আদালতে হাজির হয়েছেন খোদ ‘মৃত ব্যক্তি’।

বুধবার নারায়ণগঞ্জের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আফতাবুজ্জামানের আদালতে কথিত মৃত ব্যক্তি মামুনকে হাজির করা হয়। পরে আদালত একজন আইনজীবীর জিম্মায় মামুনকে ছেড়েছেন। জানা গেছে, ২০১৪ সালের ১০ মে চাঁদপুরের মতলব উপজেলায় নিজ বাড়ি থেকে বেড়িয়ে নিখোঁজ হোন মামুন। তখন কোনো সাধারণ ডায়েরি বা অভিযোগ করা হয়নি। এরপর ছেলেকে না পেয়ে ঘটনার ২ বছর পর ২০১৬ সালের ৯ মে মামলা করেন বাবা আবুল কালাম।

এক মেয়ের সাথে প্রেম করায় মামুনকে ‘অপহরণ করে খুন করার উদ্দেশ্যে গুম’-এর অভিযোগ এনে ফতুল্লা থানায় মামলা করেন তিনি। মামলায় আসামি করা হয় মামুনের কথিত প্রেমিকা তসলিমা, তার বাবা রকমত আলী, ভাই রফিক, খালাতো ভাই সাগর ও সাত্তার মোল্লাকে । মামলার পরে সকল আসামিকে গ্রেফতার করেন পুলিশ। পরে মাকসুদা বেগম নামের এক নারীর চাক্ষুস সাক্ষী হিসেবে দেওয়া ‘অপহরণ করে খুন করার উদ্দেশ্যে গুম’র বর্ণনা ১৬১ ধারায় জবানবন্দী রেকর্ড করা হয়। পরে আসামি কথিত প্রেমিকা তসলিমা ও তার ভাই রফিক দেড় বছর কারাবাস করেছেন। আর আসামি রকমত আলী, সাগর ও সাত্তার ছিলেন দেড় থেকে তিন মাস।

সম্প্রতি জানা গেছে, ৬ বছর আগে মৃত সেই মামুন জীবিত আছেন। পরে বাদী পক্ষের আইনজীবীরা সেই মামুনকে আদালতে হাজির করেছেন। আসামিদের আইনজীবী এমদাদ হোসেন সোহেল শুনানি শেষে সাংবাদিকদের বলেন, নিরীহ-নিরপরাধ মানুষগুলো আজ জেল খেটেছে। আমরা তার বিচার চাই। রাষ্ট্রের কাছে ক্ষতিপূরণ চাই। পাশাপাশি বাদী কেন মিথ্যা মামলা করলো, তার জন্য দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category