• রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ০৯:৪৯ পূর্বাহ্ন

সরকারি কলেজে ফরম পূরণে অতিরিক্ত টাকা নেওয়ার অভিযোগে প্রধান ফটকে তালা ও মহাসড়ক অবরোধ

/ ৩২১ বার পঠিত
আপডেট: বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই, ২০১৯

মোঃ রহমত মন্ডল, তারাগঞ্জ(রংপুর) প্রতিনিধি:- রংপুরের তারাগঞ্জে ডিগ্রি তৃতীয় বর্ষের ফরম পূরনে অতিরিক্ত টাকা নেওয়ার অভিযোগে প্রধান ফটকে তালা ও মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেন শিক্ষার্থীরা। জানা গেছে, আজ মঙ্গলবার তারাগঞ্জ ওয়াক্ফ এস্টেট সরকারি কলেজের তৃতীয় বর্ষের ফরম পূরনে অতিরিক্ত টাকা নেওয়ার অভিযোগে উঠেছে। তারই সূত্র ধরে ওই কলেজের প্রধান ফটকে তালা দিয়ে রংপুর-দিনাজপুর মহাসড়ক অবরোধ করে ওই অধ্যক্ষের নানা অনিয়মের বিষয় তুলে ধরে বিক্ষোভ করেন শিক্ষার্থীরা।
কলেজ সূত্রে জানা গেছে, ওই কলেজের ২০১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষে বিভিন্ন শাখায় মোট শিক্ষার্থী ৪০৯ জন। তাদের ফরম পূরনের জন্য বোর্ড ফি ১৪০০ টাকা মাসিক বেতন সেশন চার্জ উন্নয়ন ফি সহ মোট ৪৭৭১ টাকা দিয়ে ১৫ই জুলাইয়ের মধ্যে শেষ তারিখ নির্ধারন করে দেন কলেজ কর্তৃপক্ষ।

শিক্ষার্থীরা তাদের ফরম পূরনের জন্য কলেজে যান। পরে তাদের কলেজের ফরম পূরন কমিটি ওই নির্ধারিত ফি হতে কম নিবেন না বলে জানিয়ে দেন।
তারপর শিক্ষার্থীরা কলেজের প্রধান ফটকে তালা ঝুলিয়ে দেন। সেখানে আন্দোলন করতে থাকেন।
কয়েকজন শিক্ষার্থী অভিযোগ করে বলেন, আমাদের কলেজ সরকারি হওয়ায় আরো অনিয়ম বাড়ছে। নিয়ম বহির্ভুত করে কৌশলে বিভিন্ন টাকা আদায় করে শিক্ষার্থীদের কাছে কর্তৃপক্ষ।
এক পর্যায়ে শিক্ষার্থীরা কলেজের সামনে দুপুরে রংপুর-দিনাজপুর মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেন। পরে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন উপজেলা নির্বাহী অফিসার আমিনুল ইসলাম এবং ওসি জিন্নাত আলী। শিক্ষার্থীদের আশ্বাস দিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন করেন এবং চাবি নিয়ে কলেজের প্রধান ফটকের তালা খুলে দেন।
এদিকে শিক্ষার্থীরা ওই বিষয়ে গত সোমবার লিখিতভাবে অভিযোগ করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ে। তিনি তদন্তের দায়িত্ব দেন উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার শাহনাজ বেগমকে।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার শাহনাজ বেগম বলেন, আমি তদন্ত করে সত্যতা পেয়েছি। সরকারি কলেজের পরিপত্র দেখেছি, তারা বর্তমান নিয়ম মানছেন না পূর্বের নিয়মে কলেজ চালাচ্ছেন। বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে জানিয়েছি। তারাগঞ্জ ওয়াক্ফ এস্টেট সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ আব্দুল বারী মন্ডল মুঠো ফোনে বলেন, আমার কলেজের শিক্ষার্থীর মাসিক বেতন সেশন চার্জ উন্নয়ন ফি ও ফরম পূরন ফি ছাড়া কোন বাড়তি টাকা নেইনি। আমার বিরুদ্ধে অযথা আন্দোলন করে শিক্ষার্থীরা।


আরো পড়ুন