• মঙ্গলবার, ৩১ জানুয়ারী ২০২৩, ১০:৫৪ অপরাহ্ন




টাইব্রেকারে স্পেনকে কাঁদিয়ে মরক্কোর ইতিহাস

/ ২৪ বার পঠিত
আপডেট: বুধবার, ৭ ডিসেম্বর, ২০২২

সেই ১৯৮৬ সালে বিশ্বকাপের মঞ্চে শেষবারের মতো নকআউট পর্বে উঠেছিল উত্তর আফ্রিকার দেশ মরক্কো। তবে সেবার শেষ ষোলো থেকেই বিদায় নিয়েছিল আফ্রিকার দেশটি। যা ছিল মরক্কোর ফুটবল ইতিহাসে বিশ্বকাপে সেরা অর্জন। এরপর বিশ্বকাপে বেশ কয়েকবার অংশগ্রহণ করলেও গ্রুপ পর্ব থেকেই বিদায় নিয়েছিল তারা। কিন্তু এবার কাতার বিশ্বকাপে নতুন কিছু করার প্রত্যয় ছিল আশরাফ হাকিমিদের সামনে।

মরুর বুকে যার ফলও মরক্কো গ্রুপ পর্বেই প্রমাণ করেছিল। নিজেদের প্রথম ম্যাচে ক্রোয়েশিয়ার সঙ্গে ড্র করার পর র‍্যাঙ্কিংয়ের দুই নম্বর দল বেলজিয়াম ও আমেরিকা অঞ্চলের দেশ কানাডাকে হারিয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়েই নকআউট পর্বে পা রেখেছিল তারা। এবার তারা শেষ ষোলোয় ২০১০ সালের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন স্পেনকে হারিয়েই দিল। যার ফলে বিশ্বকাপের আসরে নতুন করে ইতিহাস গড়ল আরব ঐতিহ্যের দেশ মরক্কো।

মঙ্গলবার (৬ ডিসেম্বর) দোহার এডুকেশন সিটি স্টেডিয়ামে নির্ধারিত সময়ের খেলা গোলশূন্য থাকার পর অতিরিক্ত সময়েও কোন গোল আদায় করতে পারেনি দুই দলের কেউই। পরে টাইব্রেকারে স্প্যানিশদের পেনাল্টি শুট আউটে ৩-০ ব্যবধানে হারিয়ে ইতিহাস গড়ল হাকিম জিয়েশ-নুসাইর মাজরাউয়িরা।

এদিন দুই দলই পুরো ম্যাচে খাপছাড়া ফুটবল ম্যাচ উপহার দিয়েছে। তবে সেভাবে কেউ আক্রমণ চালাতে পারেনি। ম্যাচে ফেভারিট স্পেন শেষদিকে কিছুটা চাপ সৃষ্টি করেছিল বটে। কিন্তু সেটি মরক্কোর জন্য খুব বেশি হুমকির ছিল না। ফলে এবারের আসরে দ্বিতীয়বারের মতো ম্যাচ গড়ায় অতিরিক্ত সময়ে।

এই সময়ে শুরু থেকেই শক্তভাবে আক্রমণ চালিয়ে গোলের জন্য মরিয়া হয়ে খেলতে থাকে স্পেন। কিন্তু তারা মরক্কোর রক্ষণ ভেঙ্গে গিয়ে গোল আদায় করতে পারছিল না। তবে ১০৪তম মিনিটে ম্যাচের সবচেয়ে সহজ সুযোগ পেয়েও মিস করে বসে মরক্কো।


তবে ম্যাচের একদম শেষ মিনিটে পিএসজির তারকা পাবলো সারাবিয়ার শট গোলবারে লেগে বাইরে চলে গেলে হতাশ হয়ে যান স্পেন শিবির। ফলে গোলশূন্য অবস্থাতেই শেষ হয় ১২০ মিনিটের খেলা। ফলে ম্যাচের ফলাফল পেনাল্টি শুটআউটে নির্ধারণের সিদ্ধান্ত নেন রেফারি।

যেখানে প্রথম তিনটি শট থেকেই গোল করতে ব্যর্থ হন স্পেনের তিন খেলোয়াড় পাবলো সারাবিয়া, কার্লস সোলার ও বুসকেতস। অন্যদিকে মরক্কো প্রথম দুটি শটে গোল দিলেও তৃতীয় শটটি মিস করে তারা। কিন্তু ৪র্থ শটে গোল করে দলের বিজয় নিশ্চিত করেন মরক্কোর অধিনায়ক আশরাফ হাকিমি।





আরো পড়ুন