• শুক্রবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২২, ০৫:৫৬ পূর্বাহ্ন




কোস্টারিকাকে ৭ গোলে উড়িয়ে বিশ্বকাপ শুরু স্পেনের

/ ৬ বার পঠিত
আপডেট: বৃহস্পতিবার, ২৪ নভেম্বর, ২০২২
কাতার ফুটবল বিশ্বকাপ

মধ্যপ্রাচ্যের দেশ কাতারে অনুষ্ঠিত ফুটবল বিশ্বকাপের ‘ই’ গ্রুপে নিজেদের প্রথম ম্যাচে মাঠে নেমেছিল কোস্টারিকা ও ২০১০ সালের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন স্পেন। যেখানে কোস্টারিকাকে ৭-০ গোলে উড়িয়ে দিয়ে বিশ্বকাপে দুর্দান্ত শুরু হলো স্পেনের। যেটি আবার স্পেনের বিশ্বকাপের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় জয়। এই জয়ের ম্যাচে জোড়া গোল করেছেন স্পেন ফরোয়ার্ড ফেরান তোরেস। এছাড়া একটি করে গোল করেন দানি ওলমা, মার্কো অ্যাসেনসিও, গাভি, কার্লোস সোলের ও আরবার্তো মোরাতা।

বুধবার (২৩ নভেম্বর) দোহার আল থুমামা স্টেডিয়ামে ম্যাচ শুরুর পঞ্চম মিনিটেই এগিয়ে যেতে পারত স্পেন। কোস্টারিকার ডি-বক্সে শুধু গোলরক্ষককে পেয়েও গোল দিতে পারেননি ওলমো। তার দুর্বল আকৃতির শট গোলবারের বাইরে দিয়ে যায়। গোল পোস্টের ৪০ গজ দূর থেকে বাম দিক দিয়ে অসাধারণ ক্রস করেন পেদ্রি, কিন্তু ওলমো কাজে লাগাতে পারেননি।

তবে সেই ভুল দ্বিতীয়বার করেননি ওলমো। ১১তম মিনিটে দানি ওলমোর দুর্দান্ত এক গোলে এগিয়ে যায় স্পেন। কোস্টারিকার ডি-বক্সের বাইরে থেকে আলতো করে বল তুলে দেন গাভি। দারুণ দক্ষতায় সেই বল নিজের দখলে নিয়ে কোস্টারিকার গোলরক্ষককে ফাঁকি দিয়ে দলকে উল্লাসে ভাসান ওলমো। তার ১০ মিনিট পর সেই তালিকায় নাম লেখান মার্কো অ্যাসেনসিও। ২১তম মিনিটে জর্ডি আলবার বাম দিক থেকে নেওয়া ক্রস থেকে নাভাসকে ফাঁকি দিয়ে বল জালে জড়ান অ্যাসেনসিও।

৩১তম মিনিটে পেনাল্টি থেকে গোল করেন ফেরান তোরেস। ডি-বক্সে দুয়ার্তে ফাউল করে বসেন আলবাকে। যার সুবাদে পেনাল্টিতে বাঁ-দিকে নিচু শট নেন তোরেস। কোটারিকার তারকা গোলরক্ষক নাভাস ডান দিকে ঝাঁপ দেন। তবে বল যায় বাম দিকে। যার ফলে ৩-০ গোলে এগিয়ে থেকে বিরতিতে যায় স্পেন।

আক্রমণাত্বক ফুটবল খেলা স্পেন দ্বিতীয়ার্ধেও গোলের জন্য মরিয়া হয়ে ওঠে। যার ফলে তাদের নির্খুত পাসে বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে কোস্টারিকার ফুটবলাররা। প্রথমার্ধে গোল করা তোরেস ম্যাচের ৫৪ মিনিটে নিজের দ্বিতীয় গোল করে দলের লিড ৪-০ করেন। এরপর তাকে তুলে নিয়ে আলবার্তো মোরাতাকে মাঠে নামান এনরিকে।

কোস্টারিকাকে ৭ গোলে উড়িয়ে বিশ্বকাপ শুরু স্পেনের

কোস্টারিকাকে ৭ গোলে উড়িয়ে বিশ্বকাপ শুরু স্পেনের
ছবি- সংগৃহীত
মধ্যপ্রাচ্যের দেশ কাতারে অনুষ্ঠিত ফুটবল বিশ্বকাপের ‘ই’ গ্রুপে নিজেদের প্রথম ম্যাচে মাঠে নেমেছিল কোস্টারিকা ও ২০১০ সালের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন স্পেন। যেখানে কোস্টারিকাকে ৭-০ গোলে উড়িয়ে দিয়ে বিশ্বকাপে দুর্দান্ত শুরু হলো স্পেনের। যেটি আবার স্পেনের বিশ্বকাপের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় জয়। এই জয়ের ম্যাচে জোড়া গোল করেছেন স্পেন ফরোয়ার্ড ফেরান তোরেস। এছাড়া একটি করে গোল করেন দানি ওলমা, মার্কো অ্যাসেনসিও, গাভি, কার্লোস সোলের ও আরবার্তো মোরাতা।

বুধবার (২৩ নভেম্বর) দোহার আল থুমামা স্টেডিয়ামে ম্যাচ শুরুর পঞ্চম মিনিটেই এগিয়ে যেতে পারত স্পেন। কোস্টারিকার ডি-বক্সে শুধু গোলরক্ষককে পেয়েও গোল দিতে পারেননি ওলমো। তার দুর্বল আকৃতির শট গোলবারের বাইরে দিয়ে যায়। গোল পোস্টের ৪০ গজ দূর থেকে বাম দিক দিয়ে অসাধারণ ক্রস করেন পেদ্রি, কিন্তু ওলমো কাজে লাগাতে পারেননি।

তবে সেই ভুল দ্বিতীয়বার করেননি ওলমো। ১১তম মিনিটে দানি ওলমোর দুর্দান্ত এক গোলে এগিয়ে যায় স্পেন। কোস্টারিকার ডি-বক্সের বাইরে থেকে আলতো করে বল তুলে দেন গাভি। দারুণ দক্ষতায় সেই বল নিজের দখলে নিয়ে কোস্টারিকার গোলরক্ষককে ফাঁকি দিয়ে দলকে উল্লাসে ভাসান ওলমো। তার ১০ মিনিট পর সেই তালিকায় নাম লেখান মার্কো অ্যাসেনসিও। ২১তম মিনিটে জর্ডি আলবার বাম দিক থেকে নেওয়া ক্রস থেকে নাভাসকে ফাঁকি দিয়ে বল জালে জড়ান অ্যাসেনসিও।

৩১তম মিনিটে পেনাল্টি থেকে গোল করেন ফেরান তোরেস। ডি-বক্সে দুয়ার্তে ফাউল করে বসেন আলবাকে। যার সুবাদে পেনাল্টিতে বাঁ-দিকে নিচু শট নেন তোরেস। কোটারিকার তারকা গোলরক্ষক নাভাস ডান দিকে ঝাঁপ দেন। তবে বল যায় বাম দিকে। যার ফলে ৩-০ গোলে এগিয়ে থেকে বিরতিতে যায় স্পেন।

আক্রমণাত্বক ফুটবল খেলা স্পেন দ্বিতীয়ার্ধেও গোলের জন্য মরিয়া হয়ে ওঠে। যার ফলে তাদের নির্খুত পাসে বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে কোস্টারিকার ফুটবলাররা। প্রথমার্ধে গোল করা তোরেস ম্যাচের ৫৪ মিনিটে নিজের দ্বিতীয় গোল করে দলের লিড ৪-০ করেন। এরপর তাকে তুলে নিয়ে আলবার্তো মোরাতাকে মাঠে নামান এনরিকে।

এই ফরোয়ার্ডের পাস থেকেই ৭৪ মিনিটে গোল করেন বার্সার তরুণ তারকা মিডফিল্ডার গাভি। এই গোলের সুবাধে এক ইতিহাস গড়েন এই বার্সা ফুটবলার। স্পেনের সবচেয়ে কমবয়সী ফুটবলার হিসেবে বিশ্বকাপে গোল করেন তিনি। ম্যাচের একদম অন্তিম মুহূর্তে ৮৯ মিনিটে আবারও গোল করেন পিএসজির ফুটবলার কার্লস সোলার। আর ম্যাচের ৯২ মিনিটে ওলমোর পাস থেকে মোরাতা গোল করে দলকে ৭-০ গোলের বিশাল জয় এনে দেন।

বিশ্বকাপে ইতিহাসে এই প্রথম কোন ম্যাচে ৭ গোল করলো স্পেন। এই বিশাল জয়ে গ্রুপের শীর্ষে উঠে আসলো লুইস এনরিকের দল।





আরো পড়ুন