• বুধবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০২২, ০৮:১৪ অপরাহ্ন




টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের মূলপর্বে জিম্বাবুয়ে

/ ৮ বার পঠিত
আপডেট: শুক্রবার, ২১ অক্টোবর, ২০২২
জিম্বাবু

বাঁচা-মরার লড়াইয়ে ‘বি’ গ্রুপের শেষ ম্যাচে স্কটল্যান্ডকে ৫ উইকেটের ব্যবধানে হারিয়ে সুপার টুয়েলভ নিশ্চিত করেছে জিম্বাবুয়ে। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে নিজেদের ষষ্ঠ আসরে এসে তারা প্রথমবার যোগ্যতা অর্জন করল মূলপর্বে খেলার।

হোবার্টে শুক্রবার (২১ অক্টোবর) স্কটল্যান্ডের দেয়া ১৩৩ রান তাড়া করতে নেমে ১৮.৩ ওভারে ৫ উইকেট হারিয়ে লক্ষ্যে পৌঁছে যায় জিম্বাবুয়ে।

জিম্বাবুয়ের হয়ে সর্বোচ্চ ৫৮ রানের ইনিংস খেলেন ক্রেইগ আরভিন।

২৩ বলে ৪০ রান করে দলের জয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন সিকান্দার রাজা। স্কটিশদের পক্ষে ১৬ রান খরচায় ২ উইকেট শিকার করেন জোশ ডেভি। একটি একটি উইকেট তুলে নেন ব্র্যাড হুইল, মার্ক ওয়াট ও মাইকেল লিস্ক।
এর আগে জিতলে সুপার টুয়েলভ, হার বিদায় এমন সমীকরণে টস জিতে প্রথমে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয় স্কটল্যান্ড। তবে জিম্বাবুয়ের পেসারদের দাপটে শুরুটা ভালো হয়নি তাদের। ২৪ রান তুলতেই টপঅর্ডারের দুই ব্যাটার মাইকেল জোনস ও ম্যাথু ক্রসকে হারায় তারা। জোনস ৫ বলে ৪ রান করে টেন্ডাই চাটারার বলে ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফেরেন। ৭ বলে মাত্র ১ রান করে ক্রস বিদায় নেন রিচার্ড এনগারাভার শিকার হয়ে।

শুরুর ধাক্কা সামলে দলকে একাই টেনে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন ওপেনার জর্জ মুনসে। তবে তাকে সঙ্গ দিতে পারেননি তৃতীয় উইকেটে ব্যাট করতে নামা অধিনায়ক রিচি বেরিংটন। ১৫ বলে ১৩ রান করে সিকান্দার রাজার বলে স্লগ সুইপ খেলতে মিডউইকেটে ধরা পড়েন বেরিংটন। চতুর্থ উইকেটে তাকে সঙ্গ দিতে নামেন ক্যালাম ম্যাকলিওড। উইকেট ধরে খেলতে গিয়ে টি-টোয়েন্টির রেশ হারিয়ে ফেলেন তারা।

৪৬ বল মোকাবিলায় ক্যারিয়ারের নবম ফিফটি তুলে নেন মুনসে। হাত খুলে খেলার চেষ্টা করতেই স্কয়ার লেগে শুম্বার হাতে ধরা পড়েন মুনসে। তাকে সাজঘরে ফেরান এনগারাবা। ৫১ বল মোকাবিলায় ৭ চারের মারে ৫৪ রানের ইনিংস খেলে থামে মুনসের ইনিংস। ৯ বলে ১২ রানের ইনিংস খেলে ব্লেসিং মুজারাবানির বলে বোল্ড হয়ে সাজঘরে ফেরেন মাইকেল লিস্ক।

ওয়ানডে ধরনে ব্যাট করা ম্যাকলিওড ২৬ বলে ২৫ রান করে ইনিংসের শেষ ওভারে চাটারার বলে ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফেরেন। অন্যরাও ব্যাট হাতে দ্যুতি ছড়াতে পারেননি। শেষ পর্যন্ত ১৩২ রানেই থামে তাদের ইনিংস।

জিম্বাবুয়ের পক্ষে ২ উইকেট শিকার করেন চাটারা ও এনগারাবা। মুজারাবানি ও সিকান্দার রাজা একটি করে উইকেট শিকার করেন।





আরো পড়ুন