• বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২, ১২:৪৩ পূর্বাহ্ন




বীর মুক্তিযোদ্ধার পরিবারের উপর হামলা ও জমি দখলের অভিযোগ !

/ ১৬ বার পঠিত
আপডেট: রবিবার, ২ অক্টোবর, ২০২২
বীর মুক্তিযোদ্ধার পরিবারের উপর হামলা ও জমি দখলের অভিযোগ !

বেড়া ও পাবনা প্রতিনিধি:
স্বামী সাবেক কমান্ডার মুক্তিযোদ্ধা আসকার আলী। তিনি মারা গেছেন ২০০৪ সালে। এরপর থেকে স্ত্রী খালেদা খানম মানবেতর জীবনযাপন করছেন। বিভিন্ন হুমকি-ধামকির মধ্য দিয়ে পার করতে হচ্ছে বৃদ্ধাবস্থা। সেই ধারাবাহিতায় গত ১০ সেপ্টেম্বর দুপুরে জমি-জমা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে পুনরায় পরিবারের উপর প্রতিপক্ষের হামলা ও ভাঙচুরের ঘটনা ঘটে। পাবনার বেড়া উপজলার পৌরসভাধীন ৫ নং ওয়ার্ডের পায়না গ্রামের স্বামীর বসতবাড়িতে বসবাস করেন ভূক্তোভোগী পরিবারটি।


শনিবার ( ১ অক্টোবর ) দুপুরে সরেজমিনে গেলে কথা হয় বীর মুক্তিযোদ্ধা আসকার আলীর স্ত্রী খালেদা খানমের সঙ্গে। তিনি বলেন, আমার স্বামীকে জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জেরে হত্যা করা হয়। এরপর থেকেই প্রতিবেশি আব্দুর রাজ্জাক রাজা তাকে হুমকি-ধামকি ও প্রাণনাশের হুমকির মধ্যে রাখছেন। বাড়ির বাহিরেও যেতে পারেননা। স্বামী মারা যাওয়ার পরে সন্তানরা ছোট থাকায় থানায় কারও নামে মামলাও দিতে দেয়নি। একটি অভিযোগও পর্যন্তও দিতে গেলেও প্রাণনাশের হুমকি দিতো। এত বছর ধরে নিরাপত্তাহীনতায় দিনযাপন করছি। গত কয়েকদিন আগেও পাশের ৬৬ শতাংশ জমি নিয়ে বিরোধের জেরে আমাদের উপর হামলা করে। জোর করে জমি দখল নিতে চায় তারা। এ ঘটনার পর থেকে আরো নিরাপত্তাহীনতায় আছি। একজন মুক্তিযোদ্ধার স্ত্রী হয়ে এভাবে মানবেতর জীবনযাপন বড়ই কষ্টের ব্যাপার। প্রধানমন্ত্রীর কাছে এর বিচার চাই।


বেড়া উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আলহাজ্ব মো. ইসহাক আলী জানান, এই পরিবারের উপর অমানবিক নির্যাতন করা হচ্ছে। বর্তমান সরকারের আমলে একজন মুক্তিযোদ্ধার পরিবারের মানবেতর জীবনযান খুবই কষ্টের খবর। এটা কোনভাবেই মেনে নেওয়া যায়না। জমি সংক্রান্ত জেরে তাদের উপর হামলার নিন্দা জানান তিনি। এ বিষয়ে অভিযুক্ত প্রতিবেশী আব্দুর রজ্জাক রাজা বলেন, আমার বিরুদ্ধে যত অভিযোগ তারা দিচ্ছে সবই বানোয়াট, মিথ্যা ও ভিত্তিহীন কথা। আমাকে হয়রানি করার জন্য এমন অভিযোগ করছে তারা।


বেড়া মডেল থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আসাদুজ্জামান আসাদ জানান, এ বিষয়ে থানা পুলিশ অবগত হওয়ার পরে ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করা হয়েছিলো। বর্তমানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। মুক্তিযোদ্ধার স্ত্রী মানবেতর জীবনযান করছে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি বলেন এসব বিষয়ে আমাদের জানা নেই। বেড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) সবুর আলী বলেন, এমন বিষয়ে আমরা লিখিত অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে ক্ষতিয়ে দেখা হবে।





আরো পড়ুন