• শনিবার, ০১ অক্টোবর ২০২২, ১০:৪৪ পূর্বাহ্ন
171764904_843966756543169_3638091190458102178_n

আমদানির পরও কমছে না চালের দাম

/ ৫ বার পঠিত
আপডেট: বৃহস্পতিবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০২২
আমদানি

উর্ধ্বমূখী চালের বাজার নিয়ন্ত্রণে আনতে ভারত থেকে আমদানিতে সরকারের শুল্ক ছাড়ের মাসখানেক হতে চলল। কিন্তু না বেড়েছে চালের আমদানি, না কমেছে দাম। কুষ্টিয়ার খুচরা বাজারে আমদানি করা মিনিকেট চালও দেশি চালের সমানে ৭১ টাকা কেজি দরেই বিক্রি হচ্ছে। একে অস্বাভাবিক বলছেন চাল বিক্রেতারা, এসবকে সিন্ডিকেটের কারসাজি মনে করছেন তারা।

আমদানিকারক আর মিল মালিকের ঘনিষ্ঠ সম্পর্কই সরু চালের দাম না কমার প্রধান কারণ। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে চালকল মালিক নিজেই আমদানিকারক। নিজের চালের দাম ধরে রাখতেই আমদানিতে অনাগ্রহ তাদের। আর আমদানি করা চাল নিজেদের মোড়কে বেশি দামে বিক্রির আশঙ্কাও করছেন অন্য মিলমালিকরা।  

আমদানি কারকরা বলছেন, ভারতের তুলনায় বাংলাদেশে ডলারের মূল্য বেশি থাকায় আমদানি করা চালের দাম বেড়ে যাচ্ছে। তবে, এসব নিয়ে কোন তদারকি নেই মাঠ প্রশাসনের।

আমদানি শুল্ক ছাড় দিয়ে ৫ শতাংশে নামিয়ে আনা এবং সরকারের কম দামে চাল বিক্রির নানা উদ্যোগে এ মাসের প্রথম সপ্তাহে কেজিতে ১টাকা দাম কমলেও এখন আবার আগের দামেই বিক্রি হচ্ছে চাল। আমদানি করা চালের বস্তা পরিবর্তন করে বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে কি-না তা খতিয়ে দেখার কথা বলছে মিল মালিক সমিতি।

চাল আমদানিকারক আব্দুল আওয়াল বলেন, বাংলাদেশে আমদানি শুল্ক কমানোর সঙ্গে সঙ্গে ভারতের ব্যবসায়ীরা বাড়িয়ে দিয়েছে চালের দাম। আর ভারতে তুলনায় দেশে ডলারের দাম বেশি হওয়ায় চাল আনতেই দাম পড়ে যাচ্ছে বেশি। তাই সুযোগ নেই বস্তা বদলানোর।


আরো পড়ুন