• বৃহস্পতিবার, ০৬ অক্টোবর ২০২২, ০৬:৩১ পূর্বাহ্ন
171764904_843966756543169_3638091190458102178_n

কুষ্টিয়ায় যৌন হয়রানির অভিযোগে শিক্ষক নাহারুল ইসলাম আটক

/ ৪০ বার পঠিত
আপডেট: বৃহস্পতিবার, ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০২২
যৌন হয়রানির অভিযোগে শিক্ষক

ডেস্ক রিপোর্টঃ

কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলায় ছাত্রীকে যৌন হয়রানির অভিযোগে স্কুল শিক্ষক নাহারুল ইসলামকে (৪০) আটক করেছে পুলিশ। আজ বুধবার তাকে আটক করা হয়। এর আগে দুপুরের দিকে স্কুল চত্বরে তার অপসারণ দাবিতে শিক্ষার্থী-অভিভাবকরা বিক্ষোভ করেন। তবে শিক্ষক নাহারুল ইসলামকে পরিকল্পিতভাবে ফাঁসানো হয়েছে বলে দাবি অনেকের। নাহারুল উপজেলার আল্লারদর্গা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ইংরেজী বিভাগের সহকারী শিক্ষক।

শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, স্কুলটির ইংরেজি বিভাগের সহকারী শিক্ষক নাহারুলের কাছে প্রাইভেট পড়ার জন্য তিন দিন আগে তার বাড়িতে যায় স্কুলের এক ছাত্রী। সেখান থেকে ফিরে ওই ছাত্রী সহপাঠীদের জানায়, নাহারুল তাকে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপনের প্রস্তাব দেয়। পরে সহপাঠীরা প্রধান শিক্ষক কামরুল ইসলামের কাছে নালিশ দেয়।

বুধবার দুপুরে ওই শিক্ষার্থীরা নাহারুলের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার দাবিতে জুতা হাতে নিয়ে বিক্ষোভ করে। দৌলতপুর থানা পুলিশ গিয়ে তাদের সরিয়ে দিয়ে নাহারুলকে আটক করে নিয়ে যায়। এ বিষয়ে প্রধান শিক্ষক কামরুল হাসান বলেন, যৌন হয়রানির অভিযোগের বিষয়টি স্কুলের ম্যানেজিং কমিটিকে জানানো হয়েছে। ম্যানেজিং কমিটি সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগেই শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ করে। তবে নাহারুলের বিরুদ্ধে আগেও এ ধরনের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

তবে অভিযুক্ত শিক্ষক নাহারুল এসব অভিযোগ নাকচ করে দিয়েছেন। তিনি বলেন, কিছু কুচক্রী মহল আমার জনপ্রিয়তায় ঈর্ষান্বিত হয়ে ষড়যন্ত্র করে ফাঁসানোর চেষ্টা করছে। দৌলতপুর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মোস্তফা হাবিবুল্লাহ জানান, আটক শিক্ষক নাহারুল ইসলামের বিরুদ্ধে দৌলতপুর থানায় যৌন হয়রানি, নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।


আরো পড়ুন