• শনিবার, ০১ অক্টোবর ২০২২, ১০:৪৯ পূর্বাহ্ন
171764904_843966756543169_3638091190458102178_n

এবার শেয়ার বাজার কেলেঙ্কারিতে জড়ালেন সাকিব

/ ১৭ বার পঠিত
আপডেট: বুধবার, ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০২২
সাকিব

ডেস্ক রিপোর্টঃ

সাকিব আল হাসানের বিরুদ্ধে এবার শেয়ার কেলেঙ্কারির অভিযোগ উঠেছে। দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) এক অনুসন্ধানে শেয়ারে ব্যাপক কারসাজির তথ্যপ্রমাণ পাওয়া গেছে। তবে এ বিষয়ে কিছুই জানেন না বলে জানিয়েছেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। অনুসন্ধানে অন্যদের সঙ্গে নাম উঠে এসেছে মোনার্ক হোল্ডিংসের চেয়ারম্যান ও ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান এবং প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক কাজী সাদিয়া হাসানের। সেইসাথে ডিএসইর তদন্ত প্রতিবেদনে বেসরকারি ওয়ান ব্যাংকের শেয়ারে ব্যাপক নয়-ছয়ের প্রমাণ মিলেছে।


নয় ছয়ের প্রধান ব্যক্তি হিসেবে আলোচিত বিনিয়োগকারী আবুল খায়েরের নাম উঠে এসেছে। তিনি এবং তার স্বজনরা মিলে মাত্র ১৫ দিনের কারসাজিতে ব্যাংকটির শেয়ার লেনদেনে ১৪ কোটি ৩৬ লাখ টাকা মুনাফা তুলে নেন। নিজেদের মধ্যে শেয়ার কেনাবেচা করে কৃত্রিমভাবে শেয়ারের দাম বাড়িয়ে এই মুনাফা তুলে নেন তারা।

ডিএসই’র প্রতিবেদনে বলা হয়, এর আগে ২০২১ সালের ১৫ থেকে ৩০ নভেম্বর ওয়ান ব্যাংকের শেয়ার দর ৫৯ দশমিক ৬২ শতাংশ বেড়েছে এবং চলতি বছরের ৭ থেকে ১০ মার্চ পর্যন্ত বিডিকম অনলাইনের শেয়ারের দাম বেড়েছে ৪৫ শতাংশ। ওয়ান ব্যাংকের শেয়ারের দামে বড় ধরণের উত্থানের সময় ব্যাংকটির উল্লেখযোগ্য পরিমাণ শেয়ার কেনাবেচার সঙ্গে ১১ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান জড়িত ছিল।

অভিযুক্তদের মধ্যে রয়েছেন আবুল খায়ের হিরো, তার স্ত্রী কাজী সাদিয়া হাসান (মোনার্ক হোল্ডিংসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক), বাবা আবুল কালাম মাতবর, বোন কনিকা আফরোজ; তার সুবিধাভোগী প্রতিষ্ঠান ক্যান্ডেলস্টোন ইনভেস্টমেন্টস পার্টনার্স; ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান; শেয়ার বাজারে তালিকাভুক্ত তিন কোম্পানি জেনেক্স ইনফোসিস, ফরচুন শুজ ও সোনালী পেপার অ্যান্ড বোর্ড মিলস; আবু নাসের দুলাল, খোরশেদ আলম এবং সানোয়ার খান। এর মধ্যে আবুল খায়ের হিরো, আবুল কালাম মাতবর, খোরশেদ আলমের একাধিক বিও হিসাব ব্যবহার করা হয়।

জানা গেছে, সাকিব আল হাসান, জেনেক্স ইনফোসিস, ফরচুন শুজ ও সোনালী পেপারের নামে শেয়ার কেনাবেচার কাজটি তদারকি করেছিলেন হিরো। এ ঘটনার জন্য পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) সম্প্রতি হিরোর বাবা ও তার সহযোগীদের ৩ কোটি টাকা জরিমানা করেছে। জরিমানার অর্থ আদায়ে বিএসইসির পক্ষ থেকে আদেশও জারি করা হয়েছে। বিএসইসির নির্বাহী পরিচালক মোহাম্মদ রেজাউল করিম গণমাধ্যমকে জানান, কারসাজির ঘটনায় জরিমানাসহ বিভিন্ন ব্যবস্থা গ্রহণ করা একটি চলমান প্রক্রিয়া। কারও বিরুদ্ধে কারসাজির তথ্যপ্রমাণ পাওয়া গেলে আইন মেনে তা নিষ্পত্তি করা হয়।


আরো পড়ুন