• বৃহস্পতিবার, ০৬ অক্টোবর ২০২২, ০৭:১৪ পূর্বাহ্ন
171764904_843966756543169_3638091190458102178_n

ইইউ এর সিদ্ধান্ত গ্রহণের প্রক্রিয়ায় পরিবর্তন দরকার : জার্মান চ্যান্সেলর

/ ৪০ বার পঠিত
আপডেট: বুধবার, ৩১ আগস্ট, ২০২২
1661915258-german-n24

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ

ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) প্রতিষ্ঠানগুলোর যে কোনো সিদ্ধান্ত গ্রহণ প্রক্রিয়ায় আমূল পরিবর্তন দরকার বলে মন্তব্য করেছেন জার্মান চ্যান্সেলর ওলাফ শলৎস। একই সঙ্গে ইউক্রেন যুদ্ধের প্রেক্ষাপটে ক্ষেপণাস্ত্র ও বিমান হামলা প্রতিহত করতে ইউরোপীয় স্তরে প্রতিরক্ষা কাঠামো গড়ে তোলার পক্ষেও তিনি।

মঙ্গলবার (৩০ আগস্ট) চেক প্রজাতন্ত্রের রাজধানী প্রাগে এক ভাষণে জার্মান চ্যান্সেলর এ মত দেন।

জার্মান চ্যান্সেলর বলেন, একের পর এক সংকট সামলাতে হিমসিম খাচ্ছে ইউরোপ।

তাই ইউরোপীয় ইউনিয়নকে (ইইউ) ভবিষ্যতের জন্য আরও মজবুত করে তুলতে কিছু মৌলিক পরিবর্তনের প্রয়োজন। এজন্য ইউরোপে ঢালাও সংস্কার প্রয়োজন। বিশেষ করে ‘নব্য ঔপিনেবেশবাদী স্বৈরশাসন’-এর মুখে ইউরোপের সার্বভৌমত্ব আরও শক্তিশালী করে তোলা প্রয়োজন।
ইইউ প্রতিষ্ঠানগুলোর সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষমতায় আমূল পরিবর্তনের পক্ষেও অভিমত ব্যক্ত করেন জার্মান চ্যান্সেলর। বর্তমানে প্রত্যেকটি সদস্য দেশের সম্মতি ছাড়া অনেক সিদ্ধান্ত সম্ভব নয়। কিন্তু সর্বসম্মতিক্রমে সিদ্ধান্ত গ্রহণের এই প্রক্রিয়ার ফলে অনেক গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত থমকে যায়। তাই ভবিষ্যতে সাধারণ সংখ্যাগরিষ্ঠতার ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত গ্রহণের পক্ষে অভিমত দেন জার্মান চ্যান্সেলর। এছাড়া ইউরোপীয় পার্লামেন্টসহ ইইউ প্রতিষ্ঠানগুলোর সংস্কারও প্রয়োজন বলে তিনি মনে করেন। শলৎস বলকান অঞ্চলসহ ইউক্রেন ও অন্যান্য কিছু দেশকে ইউরোপীয় ইউনিয়নের সদস্য হিসেবে স্বাগত জানানোর উপরও জোর দেন।

এমন পরিস্থিতি সামাল দিতে ইউরোপের প্রতিরক্ষা আরও মজবুত করার ক্ষেত্রে জার্মানি জোরালো ভূমিকা নেবে বলে আশ্বাস দেন জার্মান চ্যান্সেলর। বিশেষ করে কিছু ক্ষেত্রে এতকালের ঘাটতি মেটানো জরুরি হয়ে উঠেছে বলে তিনি মনে করেন। জার্মানি আকাশসীমা মজবুত করতে যে উদ্যোগ গ্রহণ করেছে, ইউরোপের প্রতিবেশী দেশগুলোও তাতে শামিল হতে পারে, বলেন শলৎস। তার মতে, এ ক্ষেত্রে ইউরোপীয় স্তরে যৌথ উদ্যোগ আরও কার্যকর হবে। উল্লেখ্য, জার্মান সেনাবাহিনী ইসরায়েল থেকে ‘অ্যারো ৩’ নামের এয়ার ডিফেন্স সিস্টেম কেনার বিষয়ে ভাবনাচিন্তা করছে।

ওলাফ শলৎস দীর্ঘমেয়াদী ভিত্তিতে ইউক্রেনের প্রতিরক্ষা ক্ষমতা মজবুত করার পক্ষেও মন্তব্য করেন। এ ক্ষেত্রে জার্মানির বিশেষ দায়িত্ব রয়েছে বলেও তিনি মনে করেন। আগামী ২৫ অক্টোবর বার্লিনে ইউক্রেনের পুনর্গঠন সংক্রান্ত এক সম্মেলনের ঘোষণা করেন শলৎস।


আরো পড়ুন