• সোমবার, ০৩ অক্টোবর ২০২২, ১১:৪৭ অপরাহ্ন
171764904_843966756543169_3638091190458102178_n

বেজবাবা সুমন সুখবর দিলেন

/ ৩১ বার পঠিত
আপডেট: মঙ্গলবার, ১৬ আগস্ট, ২০২২
sumon

বিনোদন ডেস্কঃ

দেশের ব্যান্ড সংগীতের অন্যতম একটি ব্যান্ডের নাম অর্থহীন। এ ব্যান্ডের প্রতিষ্ঠাতা ও দলনেতা সাইদুস সালেহীন খালেদ সুমন ওরফে বেজবাবা সুমন। দীর্ঘদিন অসুস্থতায় চিকিৎসার জন্যে তিনি সবার আড়ালে ছিলেন। ক্যানসারকে পরাহত করে গত বছরের সেপ্টেম্বরে তিনি প্রকাশ করেন কামব্যাক সং ‘বয়স হলো আমার’। এবার এই সংগীতশিল্পী জানালেন ‘অর্থহীন’-এর অষ্টম একক অ্যালবাম নিয়ে আসছেন।

রোববার (১৪ আগস্ট) সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন বেজবাবা সুমন নিজেই।

ফেসবুকে তিনি লেখেন, “গত একটা সপ্তাহ ভয়ানক ব্যস্ত ছিলাম। ঘুমিয়েছি প্রতিদিন গড়ে ৪ ঘন্টার বেশি না। সারাক্ষন ব্রেইনস্টরমিং, প্ল্যানিং, স্ট্র‍্যাটেজি, এক্সেকিউশন! কোন একটা কিছু করে সেটাতে ব্যর্থ হয়ে আবার প্রথম থেকে শুরু করছিলাম অনেক কিছুই। মন ও শরীর যেন একটু পর পর রোলারকোস্টার রাইডে উঠছিল। মজার ব্যাপারটা হোল একবারের জন্যও বিরক্তি আসেনি মনে। কারন কাজটা আমার কাছে অনেক ‘স্পেশাল’ বলা যেতে পারে। কারণ কাজটা অর্থহীনের অষ্টম অ্যালবাম এর।”

তিনি আরও লেখেন, “অর্থহীনের অ্যালবাম এর কাজ করার সময় এটা খুব কমন একটা সিনারিও। ব্যান্ডের প্রতিটা মেম্বার আমার মত পাগলামি করতে থাকে কয়েকদিনের জন্য! গতকাল ভোর সাড়ে পাঁচটায় হঠাৎ মার্ক বলল ‘সুমন ভাই, এই সেশনে আমাদের অ্যালবাম এর অর্ধেক কাজ করার কথা। সাত দিনে কাজ কিন্তু শেষ (বসার কথা ছিল পনের দিন)’! শিশির আর মহান ততক্ষনে বাসায় চলে গেছে। সুতরাং শুধু আমরা দুজন ঘুমের সমস্যা হবে জেনেও মিস্টার আবসার সারটিফাইড ব্ল্যাক কফি খেয়ে সেলিব্রেট করলাম (কারন আমরা অনেক কুল)। আগামী মাসে আবার স্টুডিওতে ঢুকবো ১০-১৫ দিনের জন্য বাকি হাফ অ্যালবামের কাজ শেষ করার জন্য ইনশাআল্লাহ। গত বছরের শেষে বলেছিলাম আমাদের অষ্টম অ্যালবাম ২০২২ সালে ছাড়বো। ইনশাআল্লাহ হতাশ করবো না। অ্যালবামের ডিটেইল অর্থহীনের পেইজ থেকে শিগগিরই অফিশিয়ালি জানানো হবে। সবাই ভাল থাকবেন।”

প্রসঙ্গত, অর্থহীন ব্যান্ডের প্রধান সুমন প্রথমে ক্যানসারে আক্রান্ত হয়েছিলেন। এ কারণে পাকস্থলীর একাংশ কেটে ফেলাসহ ১৫ বারেরও বেশি অস্ত্রোপচার করিয়েছেন তিনি। ২০১৭ সালে ব্যাংককে সার্জারির পর হাসপাতাল থেকে ফেরার পথে গাড়িচাপায় মারাত্মকভাবে আহত হন তিনি। সুমনের শরীরে তখন ১১ ঘণ্টা ধরে ৯টি সার্জারি করা হয়। ব্যাংককের ওই দুর্ঘটনায় তার স্পাইনাল কড ভেঙে যায়। তখন তার মেরুদণ্ডের দুটি ডিস্কও পরিবর্তন করা হয়েছিল। এরপর তিনি জার্মানিতে এর চিকিৎসা করান।


আরো পড়ুন