• বুধবার, ১০ অগাস্ট ২০২২, ০৪:৩৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম
পুলিশের সহযোগিতায় সাংবাদিকদের পেটালেন ক্লিনিক মালিক, এসআই বরখাস্ত, গ্রেফতার – ৪  কামরাঙ্গীরচরে সাংবাদিকের ওপর হামলায় হাসপাতাল মালিকসহ আটক ৩, এসআই বরখাস্ত জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে জামালপুরে ফ্রি ডেন্টাল ক্যাম্প ও বিনামূল্যে ওষুধ বিতরণ নড়াইলের বরেণ্য চিএশিল্পী এসএম সুলতানের ৯৮তম জন্মবাষিকী আজ শিবপুরে দলিল লেখকদের অনৈতিক দাবিতে কোটি টাকার রাজস্ব হারাচ্ছে সরকার, বিপাকে সাধারণ মানুষ নারীর চিকিৎসার টাকা ফিরিয়ে দিলেন ওসি মালদ্বীপ শাখা আওয়ামীলীগের উদ্যোগে বঙ্গমাতার জন্মবার্ষিকী পালিত সমসাময়িক বিষয়ে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছেন তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ এমপি – ভিডিও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে দিনের বেলায় রাতের অন্ধকার,মোবাইল টর্চে চলছে চিকিৎসা সেবা প্রধানমন্ত্রীর সরকারী ঘর দেওয়ার নামে দিনমুজুরের টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ

ময়মনসিংহে ইজিপিপি প্রকল্পে ব্যাপক দূ র্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগ শ্রমিকদের টাকা আত্মসাৎ

বদরুল আমীন, স্টাফ রিপোর্টার / ৮৫ Time View
Update : শুক্রবার, ১ জুলাই, ২০২২

ময়মনসিংহে অতি দরিদ্রদের জন্য কর্মসংস্থান কর্মসূচি (ইজিপিপি) ১ম ও ২য় পর্যায়ের প্রকল্প বাস্তবায়নে চরম দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেছে। সদর উপজেলার ১১নং ঘাগড়া ইউনিয়নে সরেজমিনে প্রকল্পের কাজ দেখতে গেলে স্থানীয়রা এ বিষয়ে ব্যাপক অভিযোগ করেন।

স্থানীয়দের অভিযোগ, ২০২১-২০২২ অর্থবছরে অতি দরিদ্রদের জন্য কর্মসংস্থান কর্মসূচি (ইজিপিপি)১ম ও ২য় পর্যায় প্রকল্পে ব্যাপক অনিয়ম ও দূর্নীতি হয়েছে। ৩০ লক্ষ ৮৮ হাজার টাকার ৩টি প্রকল্পে ১৯৩ জন অতি দরিদ্র শ্রমিক দিয়ে কাজ সম্পন্নের কথা থাকলেও মাত্র ৩০ থেকে ৩৫ জন শ্রমিক দিয়ে কাজ করানো হয়েছে। সে কারণে এসব প্রকল্প গুলোর কাজ যথাযথভাবে বাস্তবায়ন হয়নি। যে কাজ হয়েছে তাতে সর্বোচ্চ ৫০ থেকে ৬০ হাজার টাকা ব্যয় হতে পারে বলে মন্তব্য করেন স্থানীয়রা।এদিকে প্রকল্পে নিয়োজিত শ্রমিকদের টাকা আত্মসাৎ এর অভিযোগ সহ তাদের সিমকার্ড জব্দ করে নিয়েছেন সংশ্লিষ্ট চেয়ারম্যান মেম্বাররা এমন অভিযোগ শ্রমিকদের। অনেক শ্রমিক ১ম পর্যায়ের পুরো টাকা পায়নি এখনো। কারণ টাকা আত্মসাৎ এর কৌশল হিসেবে তাদের সিমকার্ড হাতিয়ে নিয়েছেন প্রকল্পে নিয়োজিত চেয়ারম্যান মেম্বাররা। স্হানীয় সূত্রে জানা গেছে, প্রকল্পের ২য় পর্যায়েও ব্যাপক অনিয়ম রয়েছে। ৩টি প্রকল্পের মধ্যে শুধুমাত্র তালতলা শনির বাড়ির হাট নামক স্থানে নামমাত্র কাজ করে হাতিয়ে নেয়া হয়েছে লক্ষ লক্ষ টাকা। একদিকে যেমন শ্রমিকরা তাদের টাকা পাচ্ছে না অন্যদিকে প্রকল্প গুলোও সঠিকভাবে বাস্তবায়ন হচ্ছে না,তাহলে এ প্রকল্প গুলোর টাকা যাচ্ছে কার পকেটে? এমন প্রশ্ন জনমনে।

এ বিষয়ে ঘাগড়া ইউনিয়ন চেয়ারম্যান সাইদুর রহমান শ্রমিকদের সিমকার্ড জব্দের বিষয়টি স্বীকার করলেও প্রকল্পে অনিয়মের বিষয়ে কোন সদুত্তর দিতে পারেননি। প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মনিরুল হক ফারুক রেজার কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন এখন আমার মনে নেই কোন ইউনিয়নে কয়দিনের বিল দেয়া হয়েছে। তবে স্হানীয় সচেতন মহল মনে করেন বিষয় টি নিরপেক্ষ তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে আইনগত কঠোর ব্যবস্হা নেয়া হোক।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category