আগে হাসপাতালে এসি তার পরে আমরার রুমের এসি চলবে :বললেন ইউএনও ইকবাল হোসেন।

0
33

রিপোর্টার জহর হাসান সাগর:- সাতক্ষীরার তালা হাসপাতালের অসুস্থ্য রোগীদের এসি’র ব্যবস্থা না করে নিজের কক্ষে এসি চালাবেন না। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নিতে আসা রোগীদের গরমে দূর্বিসহ গরমে দূর্ভোগের চিত্র দেখে,তাদের কষ্ট উপলব্ধি করে তালা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইকবাল হোসেনের ফেইসবুক আইডিতে ১২ সেপ্টেম্বর রাত ১০ টায় দেয়া এক স্ট্যাটাসে উঠে এসেছে মানবিক আবেদনের বিষয়টি।

যা নজর এড়ায়নি তালাবাসীর পাশাপাশি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক ব্যবহারকারী অনেকের। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের দেওয়া হৃদয়গ্রাহী স্ট্যটাসটি হুবহু তুলে ধরা হল: নিজেকে অপরাধী মনে হচ্ছে। এসি রুমের মধ্যে থাকতে ভালো লাগছেনা। ফ্যাক্ট: হাসপাতালে অপারেশনের রোগী গরমের সাথে লড়ছে। রাতের তালা আমাকে বদলে দাও। কাল থেকে নিজের রুমের এসি বন্ধ থাকবে। রোগীদের ব্যবস্থা না করে ব্যবহার করবোনা। দয়া করে রুমে ঢুকে কেউ এ সি চালাতে বলবেন না। হাসপাতালের এসি হতেই হবে। এসি হবেই। কোনও ধূলো থাকবেনা। জুতো বাইরে থাকবে। আর বাথরুম থেকে গন্ধ নয় ঘ্রান আসুক।

এদিকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দেয়া ইউএনও’র এমন মানবিক আকূতিময় আবেদন নাড়া দিয়েছে,দাগ কেটেছে ফেসবুক ব্যবহারকারী তালা উপজেলাবাসীর পাশাপাশি ব্যবহৃত আইডির ফলোয়ারদের। ফেইসবুকে বইছে লাইক, কমেন্ট আর রিয়েক্ট এর ঝড়,বিষয়টি ফেসবুকের সীমাণা ছাড়িয়ে ঝড় তুলেছে চায়ের কাপে।

এমন ইউএনও বাংলাদেশের প্রতিটি উপজেলায় প্রয়োজন। কেউবা বলছেন, বাংলাদেশের সকল ইউএনও কে এমন হতে হবে। ইউএনও ইকবাল হোসেন’র আগমনে রাতারাতি বদলে যাওয়া তালার এমন চিত্রে তিনি বাহ্বা পেতেই পারেন।

এব্যাপারে তালা উপজেলা নির্বাহী অফিসার ইকবাল হোসেনের সাথে যোগাযোগ করা করা হলে স্বভাব সূলভ রীতিতেই তিনি বলেন, আমি সাধারণ মানুষের কল্যাণে কাজ করছি। যেখানে সাধারণ মানুষ ভালো থাকতে পারেনা সেখানে আমার ভাল থাকাটাও বেমানান। বর্তমানে তালা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে অসুস্থ্য অপারেশনের রোগীরা যে কষ্ট ভোগ করছেন সেটা সকলেরই জানা,তাই আমি রোগীরদের ন্যুনতম স্বস্থি না দিয়ে নিজেও গরমের স্বস্থি নিব না বলে মনকেও সাফ জানিয়ে দিয়েছি। সেটা অন্তত আমার পক্ষে সম্ভবও না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here