• শুক্রবার, ০১ জুলাই ২০২২, ০৮:৫৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম
কলম যুদ্ধে নামছে দৈনিক “দেশবাংলা”র এক ঝাঁক পেশাদার সংবাদকর্মী একতা মানবিক সোসাইটির পক্ষ থেকে সিলেট বাসীর মাঝে ত্রান সামগ্রী বিতরণ সাপাহারে কৃষকদের মাঝে বিনামূল্যে কৃষি উপকরণ বিতরণ পাঁচবিবি পৌর নির্বাচনের বাছাই পর্বে প্রার্থীর সমর্থককে জোরপূর্বক উঠিয়ে নেওয়ায় প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন সাঁথিয়া ভূমি অফিসের ময়লার ভাগাড়ে প্রধানমন্ত্রীর ছবি মির্জাগঞ্জে মাহিন্দ্রা ট্রাক্টর উল্টে চালক নিহত ময়মনসিংহ পিবিআই এর অভিযানে অটোরিক্সাসহ চোরচক্র গ্রেফতার সাপাহারে কৃষকদের মাঝে বিনামূল্যে কৃষি উপকরণ বিতরণ নড়াইলে পিকআপের ধাক্কায় ইজিবাইক যাত্রীর মৃত্যু; পিকআপসহ চালক আটক করেছে পুলিশ নড়াইলে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে একজনকে কুপিয়ে খুন, আহত ৫; অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন

বাগেরহাটে পানিবন্দী লাখো মানুষ

অনলাইন ডেস্ক / ৭৮ Time View
Update : শুক্রবার, ৩০ জুলাই, ২০২১

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট লঘুচাপের প্রভাবে তিন’দিন ধরে বাগেরহাটের অবিরাম বৃষ্টিপাত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা থেকে কমে আসলেও উপকূলীয় এখনো পানিবন্দি হয়ে রয়েছে শরণখোলা উপজেলার ৭০ হাজারের অধিক মানুষসহ জেলার লাখো মানুষ।

শরণখোলা উপজেলা প্রশাসন থেকে বলা হয়েছে, উপজেলার ৯০ ভাগ মানুষ এখনো পানিবন্দী। পানিবন্দী হয়ে পড়া নিম্ন আয়ের খেটে খাওয়া মানুষদের শুকনা খাবার দেওয়া হচ্ছে। উপজেলা পানি উন্নয়ন বোর্ডের বেড়িবাঁধের মধ্যে থাকায় ও নদীর পানিতে উচ্চতা থাকায় বৃষ্টির পানি নামতে না পারায় জলাবদ্ধতা কমছে না। শুক্রবার থেকে জেলার মোংলা, রামপাল, মোরেলগঞ্জ ও বাগেরহাট সদর উপজেলার নদ-নদীর পানি কমতে শুরু করলেও এখনো এসব উপজেলায় ৭০ হাজারের অধিক মানুষ পানিবন্দী হয়ে রয়েছে। এদিকে উপকূলীয় বাগেরহাটে টানা বৃষ্টির পানিতে ১৭ হাজার চিংড়ি ঘের ও পুকুর ভেসে গেছে। এতে ক্ষতির পরিমাণ দাঁড়িয়েছে প্রায় ১১ কোটি টাকা বলে জানিয়েছে মৎস্য বিভাগ। গত তিন দিনের টানা বর্ষণে জেলার মোংলা, রামপাল, শরণখোলা, মোরেলগঞ্জ ও বাগেরহাট সদর উপজেলাতে সবচেয়ে বেশি মাছের ঘের ভেসে গেছে। গত মে বাগেরহাটে ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের জোয়ারের পানিতে ৬ হাজারের অধিক মাছের ঘের ভেসে যায়। সে সময়ে চাষীদের ক্ষতি হয় ৯ কোটি টাকার।

বাগেরহাট জেলায় ছোটবড় ৬৭ হাজার মাছের ঘের রয়েছে। চলতি অর্থ বছরের ৩৩ হাজার মেট্রিক টন মাছ উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে। মৌসুমের শুরুতে চিড়িসহ পুকুর-খামরের মাছ অথৈই পানিতে ভেঁসে যাওযায় লক্ষ্যমাত্রা পূরণ নিয়ে শংঙ্কা দেখা দিয়েছে।

শরণখোলা উপজেলা নিবাহী কর্মকর্তা খাতুনে জান্নাত জানান, শরণখোলা উপজেলাটি পানি উন্নয়ন বোর্ডের বেড়িবাঁধের মধ্যে থাকায় ও নদীর পানিতে উচ্চতা থাকায় বৃষ্টির পানি নামতে না পারায় জলাবদ্ধতা কমছে না। জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে পানি উন্নয়ন বোর্ডের সাথে কথা বলা হচ্ছে জলাবদ্ধ পানি নিস্কাশনের ব্যবস্থা করতে। উপজেলার ৯০ ভাগ মানুষ এখনো পানিবন্দী হয়ে রয়েছে। পানিবন্দী হয়ে পড়া নিম্ন আয়ের খেটে খাওয়া মানুষদের শুকনা খাবার দেওয়া হচ্ছে। এছাড়া যাদের খাবার প্রয়োজন তারা ৩৩৩ নম্বরে ফোন করলে বাড়ি খাবার পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে।

বাগেরহাট জেলা চিংড়ি চাষী সমিতির সভাপতি ফকির মহিতুল ইসলাম বলেন, বাগেরহাটে টানা বৃষ্টির পানিতে কয়েক হাজার মাছের ঘের ভেসে গেছে। এতে ২০ কোটি টাকার আর্থিক ক্ষতি হয়েছে চাষীদের। গত কয়েক বছর ধরে প্রাকৃতিক দুর্যোগ যেন উপকূলের মানুষদের গলারকাটা হয়ে দাঁড়িয়েছে। এই উপকূলীয় জেলার আশি ভাগ মানুষ মাছ চাষের উপর নির্ভরশীল।

এই খাতের আয় দিয়ে তাদের সংসার চলে। বারবার দুর্যোগে মাছ চাষীরা সর্বশান্ত হয়ে যাচ্ছে।দেশের রপ্তানি আয়ের বড় ভূমিকা রাখে বাগেরহাট জেলা। অনেক চাষী ব্যাংক ও এনজিও থেকে ঝণ নিয়ে মাছের চাষ করে থাকে। এই খাতকে টিকিয়ে রাখতে সরকারের সাহায্য দরকার। সুদমুক্ত ঝণের ব্যবস্থা করতে সরকারের দাবি জানান এই চিংড়ি চাষী নেতা।

বাগেরহাট মৎস্য বিভাগের বিভাগীয় মৎস্য কর্মকর্তা (ডিএফও) এ এস এম রাসেল বলেন, গত দুই দিনের অতি বৃষ্টি ও প্রবল জোয়ারের পানিতে জেলার ৪৭টি ইউনিয়নে ১৭ হাজার চিংড়ি ঘের ও পুকুরের মাছ পানিতে ভেসে গেছে। সব মিলিয়ে মাছের ঘের ভেসে ১১ কোটি টাকার ক্ষতির হিসাব পেয়েছি। বৃষ্টিপাতের ধারা অব্যাহত থাকলে ক্ষতির পরিমান আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করছেন এই মৎস্য কর্মকর্তা।

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category