• বৃহস্পতিবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২২, ১২:১৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম
যে ভেরিয়েন্টাইনই আসুক না কেন স্বাস্থবিধি মেনে চলার বিকল্প নেই: ডাঃ আয়েশা আক্তার শিল্পী। এসব আস্ফালন আমাকে মোটেও বিচলিত করে না, সাঈদুর রহমান রিমন ফুলের রাজ্যে গদখালীতে ফুল চাষী ও ব্যবসায়ীদের প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত নবাবগঞ্জে ভ্রাম্যমাণ আদালতে মাদক সেবনের দায়ে যুবকের কারাদন্ড গাইবান্ধায় বিদ্রোহী দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীসহ আ. লীগ থেকে চার নেতা বহিষ্কার ঠাকুরগাঁওয়ে এতিম শিশুদের পাশে শীতবস্ত্র নিয়ে জেলা প্রশাসক নওগাঁয় -সরকারি অনুদিত সিনেমা ‘বিলডাকিনি’ এ জুটি বেধেছে মোশাররফ করিম ও ভারতের-পার্ণো মিত্র শিগগিরই বাসায় নেওয়া হতে পারে খালেদা জিয়াকে! আন্দোলন মোকাবিলা করতেই বিধি-নিষেধ: গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বগুড়া জেলা ছাত্রলীগ কমিটি বিলুপ্ত

সাবেক তথ্যমন্ত্রীর মৃত্যুতে বিএমএসএফ’র শোক।

Reporter Name / ১১৭ Time View
Update : সোমবার, ১২ আগস্ট, ২০১৯

ঢাকা সোমবার ১২ আগষ্ট ২০১৯: সাবেক তথ্যমন্ত্রী রাজনীতি বিশ্লেষক ড. মিজানুর রহমান শেলী মারা গেছেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে সোমবার তিনি মারা যান। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭৬ বছর। তার মৃত্যুতে বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরামের পক্ষ থেকে শোক প্রকাশ করা হয়েছে। সংগঠনের কেন্দ্রীয় সভাপতি শহীদুল ইসলাম পাইলট ও সাধারণ সম্পাদক আহমেদ আবু জাফর গভীর শোক প্রকাশ করেন।

রাষ্ট্রবিজ্ঞানী ও শিক্ষাবিদ ড. মিজানুর রহমান শেলী গত ২৫ জুন অসুস্থ অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি হন। তার নাতি মাহফুজ মিজান জানান, রাজধানীর শমরিতা হাসপাতালের মর্গে ড. মিজানের মরদেহ রাখা হবে। বিদেশে অবস্থানরত তার ছেলে দেশে ফেরার পর আজিমপুর কবরস্থানে তাকে সমাহিত করা হবে।

ড. মিজানুর রহমান শেলী বাংলাদেশের অন্যতম সৃজনশীল চিন্তাবিদ, গবেষক, নেতৃস্থানীয় সমাজকর্মী ও সাহিত্যিক ছিলেন। আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন স্বতন্ত্র, বেসরকারি গবেষণা ও প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর ডেভেলপমেন্ট রিসার্চ বাংলাদেশ-এর প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি এবং এশিয়ান অ্যাফেয়ার্স-এর সম্পাদক ছিলেন তিনি।

ড. মিজানুর রহমান শেলী বাংলাদেশ এবং পাকিস্তান উভয় সরকারের আমলা হিসেবে কাজ করেছেন। তিনি বাংলাদেশ সরকারের সমাজকল্যাণ বিভাগের পরিচালক ছিলেন।
তিনি ১৯৬৪ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগে শিক্ষক হিসেবে যোগদান করে কর্মজীবন শুরু করেন। ১৯৯০ সালে তিনি সরকারের টেকনোক্র্যাট মন্ত্রী হিসেবেও দায়িত্বপালন করেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category